Feedback

MD Riaz Uddin

আমি সর্বপ্রথম আল্লাহ তায়ালার শুকরিয়া আদায় করছি। আমি অত্যন্ত কৃতঙ্গতা প্রকাশ করছি জনাব ইকবাল বাহার স্যারের প্রতি ও আমাদের গ্রুপের সকল সদস্যদের প্রতি। আমি এক স্বপ্নবাজ। আমি মনে করতাম, স্বপ্ন দেখা এবং তা বাস্তবায়ন করতে গিয়ে হতাশার সাগরে পড়ে যাওয়াটা বোধ হয় “জীবন”। কিন্তু ইকবাল বাহার স্যারের “নিজের বলার মত একটা গল্প” নামক ফেইসবুক গ্রুপে জয়েন করার পর আমার ধারণাটা পুরো পাল্টে গেছে। বর্তমানে আমি বুঝতে পারি যে, স্বপ্ন দেখা এবং তা বাস্তবায়ন করতে গিয়ে হতাশার সাগরে পড়ে যাওয়ার পর পূর্ণরায় নিজের স্বপ্ন পূরণের জন্য জেগে উঠার নাম “জীবন”। বাধা আসবে আর সেটা অতিক্রম করতে হবে। আর এভাবে ক্যারিয়ারে সফলতা আসে।“এ পৃথিবীতে আমার সব অনুপ্রেরণা, সাহস আর ভালবাসার খনী হচ্ছেন আমার আব্বা আম্মা।” জার্নি টা কেমন ছিল? যা লিখে বা বলে বুঝানো সম্ভব হবে না। একটি কথা বলব, ৬০ দিনের লম্বা জার্নি টা আমার জীবনের মোড় পুরো পাল্টে দিয়েছে। আমি কখনো ভাবতে পারি নি, এই ৬০ দিনে আমি এতো মূল্যবান উপদেশ, পরামর্শ, সাহস, আর ভালবাসা পাব। খুব ভালভাবে কেটেছে পুরো সময়টা বা ৬০ দিনের ঐ জার্নিটা। যতদিন বাঁঁচব ঐ গ্রুপটার সাথে থাকতে চাই, থাকব ইনশাআল্লাহ। কি শিখেছি? সেটা লিখে শেষ করা যাবে না। তবে আমি যা শিখেছি তার মধ্যে উল্লেখ যোগ্য কয়েকটি বিষয় নিচে দেওয়া হলঃ (১) নিজেকে ভালবাসতে হবে। (২) নিজের সাবধানতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। (৩) একজন ভাল/সফল উদ্যোগতা হওয়ার পূর্বে একজন ভাল মানুষ হতে হবে। (৪) ৯টা থেকে ৫টা কাজের জন্য কখনো নির্দিষ্ট সময় হতে পারে না। ক্যারিয়ার গড়তে হলে ৫-৭টা বছর ৯-৫ টা ভূলে যেতে হবে। এটাই ইনভেস্টমেন্টের উপযুক্ত সময়। আর এ সময়টা ইনভেস্টমেন্ট হিসেবে কাজে লাগিয়ে দিলে আমার জীবনের গতি পাল্টে যাবে। (৫) প্রতিদিন অন্তত দু’একজন মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর চেষ্টা করতে হবে। (৬) কখনো অন্যের সমালোচনা / গীবত করা যাবে না। (৭) কাজে কোন বাধা আসলে হাল ছেড়ে দেয়া যাবে না। (৮) মন খারাপ করে, রাগ করে, নিজেকে হতাশায় রেখে কোন লাভ নাই। সব সময় হাসি খুশি থাকতে হবে। কি পরিবর্তন এসেছে আমার মধ্যে? আমার মাঝে অনেক পরিবর্তন লক্ষ্য করতেছি। উল্লেখ যোগ্য ১) আমি গ্রুপে জয়েন করার পূর্বে প্রতিদিন কমপক্ষে ৯ থেকে ১০ ঘন্টা ফেইসবুক, ইউটিউব বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অযথা কেটে যেত। কিন্তু এখন সর্বোচ্চ ২ ঘন্টা সময় কাটে। ২) আমি গ্রুপে জয়েন করার পূর্বে প্রতিদিন বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিয়ে ১০০-১৫০ টাকা অযথা নষ্ট হত। কিন্তু এখন তা প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। কারণ ইকবাল বাহার স্যার বলেছিলেন, “ব্যয় থেকে আয় করতে হবে।” অভিজ্ঞতাঃ আমি একজন ছাত্র। প্রায় আমাকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কোচিং এর জন্য ভর্তি হতে হতো বা যেতে হতো। কিন্তু কেহ কোন দিন ইকবাল বাহার স্যারের মতো এতো আন্তরিকতা বা সিরিয়াসলি ক্লাস নেয়নি। আমি আমাদের “নিজের বলার মত একটা গল্প” থেকে যা কিছু শিখেছি বা শিখছি তা কখনো ভূলতে পারব না। কখনো ইকবাল বাহার স্যারের ঋণ শোধ করা যাবে না। দোয়া করি আল্লাহ তায়ালাকে উনাকে দীর্ঘজীবী করুন। (আমিন) আমি একজন ছাত্র। পড়ালেখার পাশাপাশি একটি প্রাইভেট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জব করতেছি। আমি চিন্তা করতেছি গ্র্যাজুয়েশন শেষ করে ব্যবসা শুরু করব। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন। আমি যদি একজন সফল উদ্যোগতা না হতেও পারি, তবু আমার কোন আপসোস থাকবে না কারণ আমি একজন ভাল মানুষ হওয়ার রাস্তা পেয়ে গেছি। আমি মনে করি সফল উদ্যোগতা হওয়ার পূর্বশর্ত একজন (সফল) ভাল মানুষ হওয়া। সর্বশেষে বলব“স্বপ্ন একটাই, হতে চাই অনেক বড়”,তৈরি করব “নিজের বলার মত একটা গল্প”।

Saifulla Sagor

আমি সাইফুল্লাহ সাগর ইন্টার শেষ করে এখন মেটস এ পড়তেছি। আমার মেডিছিন লাইন টা অনেক ভালো লাগে তাই আমি ৩বছর যাবত একটা ফার্মেসী তে কাজ শিখেছি,তার পর একটা হসপিটাল এর ফার্মেসী তে আমার চাকরী হয় আমি এখন বর্তমান এ সোনাইমুড়ি পপুলার হাসপাতাল এর ফার্মেসি বিভাগে চাকরি রত আছি। আমি আমার অবসর সময় টা বেশিরভাগ ফেইজবুকে কাটাই। আমি আসলে ইকবাল বাহার ভাইকে অনেক আগে থেকেই চিনি উনি মাঝে মাঝে ফেইসবুক লাইভ এর মাদ্ধমে বাংলাদেশ এর তরুনদের উদ্দেশ্যে কিছু কথা বলতো। একদিক তিনি চায়না গিয়ে ও একটি লাইভ করেছিলো ব্যাবসা সম্পর্কে তরুনদের মেধা বাড়ানোর উদ্ধেশ্যে। তখনি আমি বুঝতে পারি যে বাংলাদেশের বেকার তরুনদের জন্য অন্তত এই লোকটার মন কাদে। তা না হলে উনি একজন বিজনেসম্যান চায়না গেছিলো নিজের বিজনেস এর কাজে,চায়না গিয়ে তো উনি আমাদের জন্য লাইভ করার কনো প্রয়জন নাই। এর পর অনেকদিন পর দেখি ওনার ফেইসবুকে একটি গ্রুপ (নিজের বলার মতো গল্প) আমি ও এড হয়ে জাই ওই গ্রুপে। ওনার গ্রুপ এর প্রত্তেকটা স্টাটাস আমার অন্তরে গিয়ে হিট করেছে। তার পর আমি চিন্তা করলাম যে বাংলাদেশে এই জুগে এই মানুষ কত্থেকে এলো? এই দেশের জনগন,আমলা,ব্যাবসায়ী সবাই যখন সবার কাজ নিয়ে ব্যস্ত,কেও কারো জন্য ২মিনিট সময় নষ্ট করতে চায়না সবাই নিজেকে নিয়ে ব্যাস্ত তখনি আমাদের সবার প্রিয় ইকবাল বাহার ভাই চিন্তা করলো যে আমার দেশের বেকার তরুনদের কি হবে? তারা যে গ্রেজুয়েশন কমপ্লিট করে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরতেছে তাদের কি হবে? এবং জারা বিজনেস করতে চায় পারতেছেনা তাদের কি হবে। এটা ভেবেই উনি শুরু করে দিয়েছে ৬৪ জেলা থেকে ১৬৪জন তরুন তরুণী কে নিয়ে টানা নব্বই দিনের কর্মশালা। আর ১৬৪ জন তরুন তরুনীর মদ্ধে আমি ও একজন। তার পর উনি আবার ২য় বেচ এ শুরু করে প্রথমে ২হাজার পরে ৬হাজার ও ছাড়িয়ে গিয়েছে।এভাবে একটা মানুষ আমাদের জন্য নিরলস ভাবে করে জাচ্ছেন আমরা তার প্রতি অনেক কিতজ্ঞ। এর পর আসি নিজের বলার মত গল্প থেকে আমি কি শিখলাম। আমি শিখেছি আমি চাকরী করবো না চাকরী দেবো। ইকবাল বাহার ভাইয়ের প্রত্তেকটা স্টাটাস প্রত্তেকটা লাইভ আমাকে বিজনেস এর প্রতি এতো আগ্রহ জাগিয়েছে যা বলার বাইরে। আমার মাথায় এখন প্রত্তেকটা সময় একটা বিষয় কাজ করে সেটা হচ্ছে আমি বিজনেসম্যান হবো। জেভাবেই হোক আমাকে আমার লক্ষে পৌছাতেই হবে। আমি নিজেই একটা হসপিটাল করবো। ইনশাআল্লাহ আমার অলরেডি প্লেন চলতেছে এবং আপনাদের দোওয়ায় ইকবাল বাহার ভাই এর সহযোগিতায় আমার প্লেন সাকসেস এর পথে। ইনশাআল্লাহ আপনারা হয়তো কয়েক দিনের ভিতরে আমার গল্প শুনতে পারবেন। আমার সাকসেস এর গল্প। লাইফে একটা আইডিয়ার জন্ম দিন আর ওই আইডিয়াকেই নিজের লাইফ বানিয়ে নিন, ইনশাআল্লাহ সফলতা আসবেই। জীবনে বলার মতো গল্প এই গ্রুপের মেম্বার হয়ে আমার জীবনে সবচেয়ে বেশি যেটা পরিবর্তন এসেছে সেটা হচ্ছে আমি এখন বলতে পারি আমি একজন ভালো মানুষ। ইকবাল ভাইয়ের জন্য অনেক অনেক শুভ কামনা।

Ismail Hossain Babu

দিনটা ছিল শুক্রবার,৭টা ৩০মিনিট ১৮সেকেন্ড,সৌদিআরব এর ভিসাটা কেনসেল আমার ৪ লক্ষ টাকা গচ্ছা এই নিয়ে মন খারাফ করে যখন বাজারে বসে আছি। ঠিক তখনি ছোট ভাই শহিদ এসে বলে ভাইয়া আপনার সেয়ার টা অন করেন। আপনাকে কয়েক টা মোটিভেশন ভিডিও দিচ্ছি দেখলে আপনার মন ভালো হয়ে যাবে,যাইহোক নিলাম। বাসায় গিয়েই এশারের নামাজ টা পড়েই ভিডিও গুলু দেখা শুরু করি। ভিডিও গুলো ছিল আয়মান সাদিক, সোলায়মান সুখন, আর ইকবাল বাহার ভাইয়ের ভিডিও, দেখে খুব ভালো লাগছে তবে সব চাইতে বেশি ভালো লাগছে ইকবাল বাহার ভাইয়ের ৩মিনিট ৪৭সেকেন্ডের(How to Handle Negative)এই ভিডিওটি।যেটা আমার জন্য খুবই প্রয়োজন ছিল।আর এই ভিডিও টাই আমাকে বেশি মোটিভেট করেছে। তারপর ইন্টারনেট সার্চ করে ইকবাল বাহার ভাইয়ের অনেক গুলো মোটিভেশন ভিডিও ডাঊনলোড করি।তারপর ওনার ফেসবুকে ডুকে দেখি ভাইয়ার জন্মস্থান ফেনি আরো ভালো লাগে ।ভাইয়ার কে রিকুয়েস্ট দিয়ে রাখি। কয়েকদিন পর দেখি নিজের বলার মত একটা গ্রুপ খুলা হয়। যেখানে দেশের ৬৪ জেলার ১৬৪জন সদস্যরা আছে।আর সেটা ছিল প্রথম ব্যাচ।প্রথম ব্যাচের লাইভ গুলো যখন ভাইয়া শেয়ার করতেন এবং ইউটুব দিতেন দেখে নিতাম।৩১শে জানুয়ারি ভাইয়ার একটা লাইভ শেয়ার করেছিলেন আর সেই লাইভ টায় আমি কমেন্ট করি কমেন্টা ছিল (ভাইয়া আমাকে কি এই ব্যাচে নেয়া যাবে) আর ভাইয়া কমেন্টা রিপ্লাই করে,সন্ধায় ৬টা ৫৭মিনিট ৯সেকেন্ড এ ওনি বলে ২য় ব্যাচে নেয়া হবে এবং128uuddogta@aalaadin.com.bd তে (CV)সেন্ড করতে।আমি সেই দিনই ৭টা ৩৯মিনিট ৫০সেকেন্ডে সিভি সেন্ড করে আবার কমেন্ট করি।দেখতে দেখতে ১ম ব্যাচের কর্মশালা শেষ হয়ে যায় এবং সুন্দর একটা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সম্পন্ন হয়। ৩রা মার্চ নিজের বলার মত গল্পের ২য় ব্যাচের এড করা হয় আমাকে।আমাদের কর্মশালা শুরু হয় ৫ই মার্চ লাইভ ক্লাসের মাধ্যমে।এ যেন নতুন জিবন, নতুন অনুপ্রেরণা, আলহামদুলিল্লাহ্‌ ভাইয়া ওনার মূল্যবান সময় ব্যয় করে আমাদের একটু একটু করে তৈরি করছেন।শিখিয়েছেন কি ভাবে নিজেকে প্রশ্ন করতে হয়।শিখিয়েছেন কিভাবে স্বপ্ন দেখতে হয়,সাহস করতে হয়, স্বপ্নের পেছনে লেগে থাকতে হয়,কিভাবে নিজেকে ভালোবাস তে হয়, মা বাবা কে ভালোবাসতে হয়,কিভাবে সৎ থাকতে হয়,আরো শিখেছি ছোট ছোট সখের জিনিসটা এখনি না কিনে ক'বছর পর।ভাগ্য,চমক,Miracle এগুলো বিশ্বাস না করে নিজের যোগ্যতার উপর ভরসা করতে শিখেছি।কিভাবে কাস্টমার হ্যান্ডেল করতে হয় তা শিখেছি, কিভাবে কাস্টমারদের সাথে সুন্দর করে কথা বলতে হয় তা শিখেছি যায় জন্য আমার রিপিট কাস্টমার বেশি, এবং প্রায় কাস্টমার বলে ভাইয়া আপনার কন্টাক্ট নাম্বার টা দেয়া যাবে ? ইন শা আল্লাহ্‌ আমি আরো শিখতে চাই আরো জানতে চাই।সর্বোপরি একজন ভালো মানুষ হতে চাই আর নিজের বলার মত গল্প তৈরী করতে চাই।এই মহান উদ্যোগের জন্য ইকবাল বাহার ভাইকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

Hasan Mahmud

আমি হাসান মাহমুদ, জেলাঃ মানিকগঞ্জ । জানি সময় সীমা পার হয়ে গেছে।হয়তো বইতে ছাপার সুযোগও নেই, তবুও মন চাইল লিখতে- প্রিয়, ইকবাল বাহার ভাই, যেদিন থেকে আপনাকে চিনি সেদিন থেকেই কেন জানি অনেক আপন মনে হয় আপনাকে। আমার ২৫/ ২৬ বছরের এই জীবনে একদম রুট লেভেল থেকে শুরু করে অনেক হাই প্রফাইল পর্যন্ত অনেক মানুষের সাথে পরিচয়, সাক্ষাত, ওঠাবসা, কাজ করা এবং শেখার সুযোগ হয়েছে। এত সব মানুষের মধ্য কিছু মানুষ পেয়েছি যারা একটু ব্যতিক্রম। যারা জীবনটাকে ৮/১০ টা মানুষের মত করে দেখেন না। জীবনটার অর্থ তাদের কাছে একটু ভিন্ন। শুধু নিজেকে নিয়ে চিন্তা করাটাই তাদের কাছে সবকিছু নয়। অন্যকে নিয়ে ভাবা, অন্যের ভাল চিন্তা করা, অন্যের মুখে হাসি ফোটানো এগুলোই তাদের কাছে জীবনের মানে। আমার দেখা এমনই একজন ভালমানুষ, প্রিয় ইকবাল বাহার ভাই।যিনি হৃদয় দিয়ে অনুভব করেন, সুন্দর একটা পৃথিবী গড়তে ভালমানুষ হবার কোন বিকল্প নেই, আর শুধু নিজে ভালমানুষ হওয়া বা ভালথাকাই যথেষ্ট নয় বরং চারপাশের মানুষকে ভালমানুষ হতে, ভাল থাকতে সর্বাত্তোক সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিতে হবে। প্রিয় ইকবাল বাহার ভাই, আপনার অসংখ্য দর্শনের মধ্যে ১. 'ভালমানুষ হওয়া বা ভালমানুষ হয়ে ওঠা' এই দর্শন আমাকে সবথেকে বেশি আকর্ষিত করে। আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি যে একটা মানুষ যদি "ভালমানুষ হওয়া বা ভালমানুষ হয়ে ওঠা" এই একটিমাত্র দর্শন তার জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে রিলেট করে চলতে পারে, তাহলে বাহ্যিক দৃষ্টিতে সে একজন সফল মানুষ বলে বিবেচিত হবে কিনা জানিনা , তবে আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি যে, প্রকৃতপক্ষে সে একজন সফল, সুখী ও সমৃদ্ধ মানুষ। এবার আসি আপনার অন্যান্য দর্শনে- ২। "স্বপ্ন দেখুন, সাহস করুন, শুরু করুন, লেগে থাকুন; সাফল্য আসবেই" এই দর্শনটাও আমাকে প্রচন্ডভাবে অনুপ্রাণিত করেছে। আমি নিগুঢ়ভাবে ভেবে দেখেছি বাক্যটার ওজন কতইনা ভারি। এছাড়াও ০৩. "নিজের বলার মতো একটা গল্প থাকা দরকার"। ০৪. সফলতা হচ্ছে ৪ “স” – সুশিক্ষা, সুস্বাস্থ্য, সুখ ও সম্পদ। ০৫. " কিভাবে ব্যবসায় শুরু করব? উত্তর, একটাই ফর্মুলা “প্রেম করা শুরু করেন” ০৬। "প্রতিযোগিতা হউক ভালমানুষ হবার" ০৭।এছাড়াও স্টার্ট আপ আইডিয়া মার্কেটিং নেট ওয়ার্কিং, মুলধন সংগ্রহ, ডকুমেন্টেশন, সহ অসংখ্য সু-স্পস্ট গাইডলাইন সত্যিই জীবনটাকে নতুন করে ভাবাতে শুরু করেছে। আর আপনার বড় গুনগুলোর মধ্যে অন্যতম একটা গুণ হচ্ছে শেষ পর্যন্ত লেগে থাকা। যার অন্যতম প্রমাণ এইটা যে, আপনি নিঃশ্বার্থভাবে আমদের মতো তরুণদের পেছনে লেগে আছেন শুধু মাত্র ভাল কিছু করার প্রতিক্ষায়, আপনার এত মুল্যবান সময় অবিরাম দিয়ে চলেছেন আমাদের। সত্যিই আন্তরিকতা দিয়ে কোন কিছু চাইলে তার প্রতি ডেডিকেশন যেমনটা হয় আরকি। আপনার গুণের কথা বর্ণনার জন্য লাইনের সীমাবদ্ধতা যথেষ্ট নয়। তাই পরিশেষে এইটুকু বলতে চাই, হৃদয়ের গভীর ভালবাসা ও শ্রদ্ধার আসনে সমাসীন হয়ে আছেন, থাকবেন চিরকাল, প্রিয় ইকবাল বাহার ভাই ।

মুহম্মদ সাদমান জহির

এই প্রথম ফেইসবুকে একটা গ্রুপ দেখলাম। যে গ্রুপে ৬হাজার মানুষ। প্রত্যেকেই সাহসী কন্ঠে আত্মবিশ্বাসী চিত্তে একটি মাত্র সপথ করছে "আমি ভালো মানুষ হতে চাই" এবং প্রত্যেকের প্রোফাইলে ইতিমধ্যেই লিখে রেখেছে "একজন ভালো মানুষ।" আমি গর্বিত। আমি আনন্দিত। আমি পুলকিত এই গ্রুপের একজন সদস্য হিসেবে। আমরা মানুষ। মানুষ মানেই যার মন আছে। মানুষের মনের অস্তিত্বও আছে। তবুও মনকে দেখা বা স্পর্শ করা যায় না। মন যদিও চোখে দেখা যায়না বা স্পর্শ করা যায়না তবুও মানুষের চিন্তায় 'মনের' দু'টি রংয়ের অস্তিত্ব রয়েছে। একটি হচ্ছে "সাদা মন" আরেকটা হচ্ছে "কালো মন" "সাদা মন" বলতে পরিষ্কার মন বা ভালো মন বুঝায়। যে মনে পাপ নেই। যে মনে অহংকার নেই। যে মনে কুঠিলতা নেই। যে মনে অন্যের ক্ষতি নেই। যে মনে হিংসা নেই, বিদ্বেষ নেই। লোভ নেই, লালসা নেই। যে মনে আছে মনুষ্যত্ব। যে মনে আছে মূল্যবোধ। যে মনে আছে পরোপকার। যে মনে আছে সত্য। যে মনে আছে ন্যায়। যে মনে আছে ধর্ম। যে মনে আছে কর্তব্য। যে মনে আছে ভালোবাসা। সেই "সাদা মনের" অধিকারী মানুষের আজ বড়ই অভাব। তবে অভাব বা আকাল হলেও এখনো নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়নি। সমাজে উনাদের কিছু অস্তিত্বের কারণেই আমাদের সমাজ টিকে আছে। আমাদের সভ্যতা টিকে আছে। সংস্কৃতি টিকে আছে। অতি অল্প সংখ্যক সাদা মনের অধিকারী মানুষের মধ্যে একজন হলো ইকবাল বাহার (Iqbal Bahar)। যিনি আব্দুল্লাহ আবু সায়ীদ স্যারের "আলোকিত মানুষ চাই" স্লোগানের আরেকটা প্রতিচ্ছায়া; হাজারো শিক্ষিত তরুণদের হৃদয়ে প্রতিষ্ঠিত করে দিয়েছেন "একজন ভালো মানুষ" স্লোগান। যিনি সাদা মনে সবাইকে ভালোবেসে এবং সবার ভালোবাসায় ধন্য হন। অন্যের আনন্দে নিজে আনন্দিত হন। অন্যের কল্যাণে নিজেকে বিলিয়ে দেন। অন্যের উন্নতিতে নিজেকে উৎসর্গ করেন। অন্যের সুখের চিন্তায় নিজেকে বিসর্জন দেন। যিনি সারাক্ষণ ব্যাকুল থাকেন তরুণদের মুখে হাসি ফুটাতে। যিনি নিজেকে অস্থির রাখেন দেশটাকে আরো এগিয়ে নিতে। সেই ইকবাল বাহারের হাতে হাত রেখে ৬০০০মানুষ দীপ্ত কন্ঠে সপথ নিয়েছে,আর কিছু হোক বা না হোক একজন ভালো মানুষ হবেই। দেশের স্বার্থে দশের স্বার্থে নিজেকে বদলাবেই। ভেতরের সব সংকীর্ণতা কুঠিলতা ঝেড়ে মুছে সহজ সরল আর আনন্দময় সাদা জীবন গঠন করবেই। "নিজের বলার মত একটা গল্প" গ্রুপের কারিগর, সাদা মনের, সাদা জীবনের, সত্য সংগ্রামের, প্রতিষ্ঠিত জীবনের বলিষ্ঠ কন্ঠের অধিকারী ইকবাল বাহার স্যারকে এবং এই পথের পাথেয় অনুসারী হাজারো ভালো মানুষদের জানাই হাজারো সালাম।

Amdadul Haque Sarkar

ইংরেজিতে বলে, "life is a full of struggle " অর্থাৎ জীবন মানেই সংগ্রাম।জীবন নামক সংগ্রামে যখন বারংবার পরাজিত হয়ে হতাশার সাগরে প্রায় ডুবন্ত ঠিক তখনই চোখে পড়ল, এক ভদ্র লোকের লাইভ ভিডিও।তখন ভেবেছিলাম কত জনেই তো কত কিছু বলে এবং করে, দেখি এই ভদ্রলোক আবার কি বলে। তখন দেখলাম,তিনি তার ভিডিওর মাধ্যমে বলতেছিলেন, কিভাবে একজন উদ্যোক্তা হওয়া যায়, কীভাবে একজন ভাল মানুষ হওয়া যায়।অথৈজলে ডুবন্ত মানুষ যেমন খড়কুটা পেলে আক্রিয়ে ধরে বাঁচতে চাই ঠিক তেমনি করে তখন আমার মধ্যেও নিজেকে প্রকাশ করার ইচ্ছা জাগ্রত হয়েছিল। ভদ্রলোকের কথাগুলো শুনে আমি মুগ্ধ হয়েছিলাম এবং নতুন করে জীবন নিয়ে ভাবতে শুরু করেছিলাম।তারপর আমি যুক্ত হলাম এই মানুষটার নিজ হাতে গড়া "নিজের বলার মত একটা গল্প থাকা দরকার" গ্রুপে।যা আমার ক্ষুদ্র জীবনের একটা টার্নিং পয়েন্ট।তখন এই গ্রুপের সদস্য সংখ্যা ছিল সারা বাংলাদেশ থেকে ১৬৪ জন।একদিন নয়, দুই দিন নয়, একটানা নব্বই (৯০) দিন এই ভদ্রলোক তিল তিল করে আমাদেরকে গড়ে তুলেছে একজন উদ্যোক্তা হিসেবে।যাদের নিকট জীবন ছিল হতাশা নামক বস্তু ঠিক ৯০ দিন পরে তাদের নিকট জীবন হয়ে যায় চ্যালেন্স।১৬৪ জনের মধ্য অনেকেই আজ সফল উদ্যোক্তা আর বাকিরা উদ্যোক্তা হতে না পারলেও ভবিষ্যতে ভাল কিছু করবে সে আশা নিয়ে পরিশ্রম করে যাচ্ছে।এই ১৬৪ জনের নিকট আজ হতাশ নামক শব্দটাও হতাশ। বর্তমানে বাংলাদেশের প্রধান সমস্যা হচ্ছে বেকারত্ব।যা প্রত্যেক বছরেই বাড়ন্ত।এই বাড়ন্ত সমস্যা সমাধানে যে লোকটা শুধু কথায় নয় বরং কাজের মাধ্যমে সরেজমিনে নেমেছে তিনি আর কেউ নয়, নিজের বলার মত একটা গল্প থাকা ধরকার এর রূপকার 'ইকবাল বাহার'।হ্যাঁ আমি এই ভদ্র লোকের কথায় বলতেছিলাম, যিনি হাজারো তরুনকে শিখাচ্ছে কীভাবে স্বপ্ন দেখতে হয়,কীভাবে স্বপ্নকে বাস্তবে রূপায়িত করতে হয়, কীভাবে একজন ভাল মানুষ তথা একজন ভাল ব্যবসায়ী হতে হয়।এই মহান মানুষটার নাম নিলে প্রাণভরে শ্রদ্ধা আসে, হাজার বছর বাঁচতে ইচ্ছে হয়।সবশেষে এই মানুষটা সম্পর্কে এতটুকুই বলব, "তুমি কেমন করে গান করো হে গুণী,আমরা (তরুনরা) অবাক হয়ে শুনি।" সত্যিই আমি এই মানুষটার প্রতি চির কৃতজ্ঞ এবং তার নিকট থেকে শেখা কার্যাবলীর প্রতি দায়বদ্ধ।

Mithan Bhowmick

তরুন উদ্দ্যোক্তাদের অনুপ্রেরণার অপর নাম ইকবাল বাহার ইকবাল বাহার তরুণদের উদ্দ্যোক্তাদের কাছে জনপ্রিয় একটি নাম। উনার আয়োজিত তরুনদের জন্য করা 'নিজের বলার মতো একটা গল্প' থেকেই তরুনদের সাথে সখ্যতা গড়ে ওঠে তার। নিজের বলার মতো গল্প হলো তরুণ উদ্যোক্তা তৈরির কারখানা। সেখানে যা শিখানো হয় তা সম্পূর্ণ অনলাইনে বিনা খরচে। যাতে শিক্ষার্থীদের কোন টাকা-পয়সাই খরচ করতে হয় না। উনার আয়োজিত নিজের বলার মতো গল্পের প্রথম কর্মশালা অংশগ্রহন করেন ৬৪ জেলার ১৬৪ জন উদ্যোক্তা। টানা ৯০ দিন চলে সেই কর্মশালা। সেই থেকে যে যাত্রা শুরু এখনো চলছে উনার উদ্যোক্তা তৈরির কারখানা। উনার দ্বিতীয় ব্যাচে অংশগ্রহন করে ৬ হাজারেরও বেশি তরুণ-তরুণী যারা কিনা উদ্যোক্তা হিসেবে মাঠে নামার পথে। অসংখ্যা তরুণ-তরুণীর অনুরোধ রাখতে গিয়ে দ্বিতীয় ব্যাচ শেষ না করতেই শুরু হয়ে গিয়েছে চার হাজারেরও বেশি ছাত্রছাত্রী নিয়ে নিজের বলার মতো গল্পের তৃতীয় ব্যাচ। তিনি আশা করেন এই দশ হাজারেরও বেশি উদ্যোক্তা দিয়ে একদিন এক লক্ষেরও বেশি কর্মসংস্থান তৈরি হবে। উদ্যোক্তা বানাবার পাশাপাশি তিনি ভালো মানুষ হবার শিক্ষা দেন। নিজের বলার মতো গল্পের মূল স্লোগান হলো "স্বপ্ন দেখুন, সাহস করুণ, শুরু করুণ এবং লেগে থাকুন"। তিনি আলাদিন ডট কম এবং অপটিম্যাক্স কমিউনিকেশন লিমিটেডের স্বত্বাধিকারী। ওনার বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারে তিনি সিঙ্গার বাংলাদেশ, গ্রামীণ সাইবারনেট এশিয়ান টিভি, বৈশাখী টিভি, ঢাকা এফএম সহ অনেক জায়গায় পদচিহ্ন রেখেছেন। অনেক চরাই-উতরাইয়ের মাঝে দিয়ে যাওয়া উনার গল্প গুলো শুনলে আপনার শুধু শুনতেই ইচ্ছা করবে। সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে অবসর সময়ে তরুণদের কাছে ছুটে যান তাদের সাথে কিছু সময় কাটাতে, তাদের নতুন নতুন ভাবনাগুলো সম্পর্কে জানতে। ঢাকা ও ঢাকার বাইরে একশটিরও বেশি মঞ্চে তিনি তরুণদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রেখেছেন। এছাড়াও বর্তমানে তিনি ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্টারপ্রেনার ডিপার্টমেন্টের শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছেন।

Mahabub Hasan

আমি মনে করি প্রতিটি মানুষের "জীবনে বলার মত একটা গল্প থাকা দরকার" আমাদের মত অধিকাংশ যোবক ভাই ও বোনেরা লেখাপড়া শেষ করে, ভালো একটি চাকরীর আশায় থাকে ।তাদের কাছে একটি চাকরি মানে একটা সোনার হরিণ । সেই দৃষ্টিকোন থেকে বাংলাদেশে বেকার মানুষের সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে । চাকরি করার সেই মন মানুষিকতা থেকে বেড়িয়ে আসার জন্য "চাকরি করবো না চাকরি দেব" একটি প্লাটফ্রম তৈরী করেছেন। আমাদের সবার পরিচিত প্রান প্রিয় ইকবাল বাহার স্যার । আমি স্যারের প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতঞতা প্রকাশ করছি। যিনি হাজারো ব্যস্ততার মাঝে থেকে ও আমাদেরকে নতুন করে স্বপ্ন দেখতে উৎসাহিত করেছেন। এবং সেই স্বপ্নকে কিভাবে বাস্তবে রুপ দেওয়া যায়, সেই লক্ষে আমাদের জন্য নিরলস প্ররিশ্রম করে যাচ্ছে । সত্যি স্যার, আপনার মত একজন সাদা মনের মানুষের সাথে পরিচিত হতে পেরে নিজেকে অনেক সৌভাগ্যবান মনে করছি । আপনার এই মহৎ উদ্যোগ নিশসন্দেহে প্রশংসনীয় । এই লম্বা কর্মশালার প্রতিটা শেসান আমি অনেক মনযোগ সহকারে পড়েছি আপনার মূল্যবান সব কথাগুলো আমাকে অনুপ্রানীত করেছে। জীবনে বলার মত একটা গল্প শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত জার্নিটা খুবই চমৎকার ছিল, অনেক ইন্জয় করেছি। অনেক অজানা কিছু জানতে পেরেছি। বিশেষ করে আপনার প্রতিটি কথার অর্থ খোজার চেষ্টা করেছি । অগুছালো যাযাবর জীবনটাকে পরিপূর্ন ভাবে বদলানোর চেষ্টা করছি। নিজেকে ভালোবাসতে শুরু করেছি। মানুষকে শ্রদ্ধা এবং সম্মান করতে শিখেছি। আগের থেকে মনের মধ্যে আত্মবিশ্বাসটা বেড়ে গেছে। আমার প্রত্যাশা ও বিশ্বাস জীবনে অনেক বড় একজন বিজনেসম্যান হবো। স্বপ্ন দেখেছি, সাহস আছে , শুরু করবো , লেগে থাকব সাফল্য অর্জন করবো ,দোয়া করবেন স্যার আমি যেন , একজন পুরিপুর্ণ ভালো মানুষ হয়ে নিজেকে প্রতিষ্টিত করে সমাজের অবহেলিত মানুষের জন্য কাজ করে যেতে পারি । ইন্শা্আল্লাহ্।

Md Hasibul Hasan

সত্যি বলতে আমারা মা,বাবা,অনেক কিছু দিয়েছি কিন্তু একটা জিনিস দেইনি। সেটা হলো সমাজে নিজেকে ভাল ভাবে প্রতিষ্ঠিত করতে হলে কি কি গুন থাকা দরকার।কিন্ত আমি পেয়েছি ৩৪ বছর পর এখন মনে হচ্ছে অনেক দেরী করে ফেলেছি।কেন যে ইকবাল বাহার স্যর সাথে ১০ বছর আগে দেখা হলো না!!?আমি একটি এগ্রো প্রজেক্ট করি ২০১৬ সালে প্রায় ১৭ লক্ষ টাকার। তেমন কোন ভাল ধারনা ছিল না আমার।প্রায় ঠিক করে ফেলেছিলাম যে প্রজেক্ট বন্ধ করে দিব যেমন টি বরাবরের মত করি।কোন কিছুতে মন বসাতে পারছিলাম না।হঠাৎ ২০১৮ সালে "নিজের বলার মত একটি গল্প " ইকবাল বাহার স্যর এর মত একজন মহৎ মানুষের সাথে দেখা হয়ে যায় ফেইজবুক লাইফ এ।তার কাছ থেকে শিক্ষা পেয়েছি ১।কিভাবে নিজেকে একজন সমাজে ভাল মানুষ হিসাবে গরে তুলতে হয়। ২।কিভাবে সময় কে কাজে লাগিয়ে জীবনে সফল্য অর্জন করা যায়। ৩।কিভাবে সপ্ন বাস্তবায়ন করা যায়। ৪।কিভাবে নেটওয়ার্কিং এর মাধ্যমে ব্যবসায় সফল হওয়া যায়। ৫।কিভাবে নিজেকে একজন সফল ব্যবসায়ী হিসেবে অন্যের কাছে উপস্থাপন করাযা। ৬।কিভাবে একটি কোম্পানি প্রোফাইল তৈরি করতে হয়। ৭।কিভাবে নিজেকে নিজের চিনতে হয়। আমার মনে হয় স্যর এর কাজ থেকে যা শিখেছি তা দিয়ে ৫০০ পৃষ্ঠার একটি বই লিখতে পারব। সব চেয়ে মজার বিষয় হলো স্যর একটি কথা আমি মেনেছি সেটা হলো "লেগে থাকতে হবে" যে কারনে আমার প্রজেক্ট এর ২০১৮ সালের মার্চ মাসে মাছের হ্যাচারী থেকে বড় অংকের লাভের মুখ দেখতে শুরু করেছি।তাই আপনারকে বলছি ইকবাল বাহার স্যর এর এতগুলো উপদেশ এর মধ্যে শুধু একটি কথা আমি মেনেছি তাতেই আমি সাফল্য। আর যদি তার সব কথা মানা যায় আমার মনে হয় বিজনেস ম্যাগনেটিক হতে বেশি সময় লাগবে না। স্যালুট ইকবাল বাহার স্যর।

Dipønkar

একদিন একটা নিউজ চোখে পড়লো "নিজের বলার মত একটা গল্প থাকা দরকার - ইকবাল বাহার"। দেখলাম ৬৪ জেলা থেকে ১৬৪ জনকে নিয়ে একটা কর্মশালা করছেন উদ্যোক্তা তৈরির এবং ফ্রীতে। মনে মনে ভাবলাম অনেক বড় সুযোগ হাতছারা হয়ে গেছে। কিছুদিন পরে এই কর্মশালা শেষ হবার পর দেখলাল তিনি আবার আরো ১০০০ জনকে ৫ এপ্রিল থেকে প্রশিক্ষণ দিবেন ৬০ দিন ব্যাপি। এবার জয়েন করলাম নিজের বলার মতো একটা গল্পে। মনে হলো এতদিন নিজে কিছু করবো বলে যে ভাবছিলাম তা এবার এর মাধ্যমেই হয়তো সম্ভব হবে। এই কদিনে অনেক কিছু শিখেছি স্যারের কাছ থেকে তা হয়তো এই পরিবারের সাথে যুক্ত না হলে সম্ভব হতো না। শিখেছি, সবছেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে একজন ভাল মানুষ হওয়া, কেবল একজন ভালো ও সৎ মানুষই পারে সমাজের জন্য ভালো কিছু করতে। শিখেছি, কিভাবে একদম নিস্ব হয়েও ব্যবসার জন্য মূলধন যোগাড় করা যায়। কিভাবে সকল হতাশা থেকে বেরিয়ে নিজের ভালোলাগার কাজ ও স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে হয়। কিভাবে সময়ের সঠিক ব্যবহার করতে হয়। সমালোচকদের কিভাবে স্বাগত জানাতে হয় শিখেছি। পেয়েছি উদ্যোক্তা হওয়ার অনেক অনেক আইডিয়া। ব্যবসা করতে যে আইডিয়াগুলোর দরকার তা পেয়েছি স্যারের কাছ থেকে। অনেক অভিজ্ঞতা হয়েছে আমার। এই কর্মশালায় যোগ দেয়ার আগের আমি আর এখনকার আমার মাঝে অনেক পার্থক্য তৈরি হয়েছে। ব্যপক পরিবর্তন আসতে শুরু করেছে আমার মাঝে। তা সম্ভব হয়েছে ইকবাল বাহার স্যার আর এই গ্রুপের সব সদস্যের জন্য। আমি গর্ববোধ করি আমি ইকবাল বাহার স্যারের নিজের বলার মতো একটা গল্প গ্রুপের ২য় ব্যাচের একজন সদ্স্য হয়ে। এই শিক্ষা যেন কাজে লাগাতে পারি এবং আমার আইডিয়ার বাস্তবায়ন করতে পারি। এই আশির্বাদ/দোয়া করবেন আমার জন্য।

Mahtab H. Tuhin

“ নিজের বলার মত একটা গল্প”-এ আমি আছি ২য় সেশন থেকে। দু’ মাসের এই কর্মশালার আগেও এই গ্রপটাতে একটি কর্মশালা হয়েছিল যেখানে ১৬৪ জন নিজের বলার মত গল্প খুঁজে পেয়েছে। এই লম্বা কর্মশালায় আমি দেখেছি কিভাবে একজন ভালোমানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে হয়,কিভাবে নিজেকে সম্মান করতে শিখতে হয় কিভাবে অন্যের মতামতের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করতে হয়। এই জার্নি সত্যিই অসাধারণ ছিল। অনেক কিছু শিখেছি এখান থেকে। সবচেয়ে বেশি যেটা ভালো লেগেছে সেটা হচ্ছে ইকবাল বাহার ভাইয়ার আমাদের জন্য প্রতিদিন কাজ করে যাওয়া,প্রতিদিন কিছু না কিছু শেখানো,কিছু না কিছু হোমওয়ার্ক দেয়া। এখান থেকে আমি শিখেছি নিয়মানুবর্তিতা। যেকোনো কাজ অল্প করে হলেও প্রতিদিন করে যাওয়ার মানসিকতা আমার মধ্যে গড়ে উঠতে শুরু করেছে। এছাড়াও তিনি আমাদের জন্য কয়েকজন অতিথিকেও নিয়ে আসেন। তাদের কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ণ অনেক কিছু শিখেছি। আয়মান সাদিক ভাইয়ার কথা না বললেই নয়। অনেক ভালো ভালো কিছু দিক নির্দেশনা দিয়েছেন। এসব থেকে আমার জিবনে যে পরিবর্তন এসেছে তা হলো আমি ডিসিপ্লিন বজায় রাখতে শিখে গেছি। এবং আমি নিশ্চিত যে আমার এই মানসিকতা ভবিষ্যতে অনেক বড় প্রাপ্তি হবে আমার জন্য। আমি কিছু সঞ্চয়ও করতে শুরু করেছি এর-ই মধ্যে। এই কর্মশালা আমাকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে আমার লক্ষ্যের দিকে। ভবিষ্যতে হয়তো বা আমি সফল হব,হয়তো বা হবো না। কিন্তু এখান থেকে শেখা,রপ্ত করা অভ্যাসগুলো নিজেকে সামনে এগিয়ে নিতে সাহায্য করবে,প্রেরণা যোগাবে। আর তখনই আমার নিজের বলার মতন একটা গল্প তৈরী হবে। সত্যিই, জিবনে নিজের বলার মত একটা গল্প থাকা দরকার।

Mustofa Kamal

ইন্টারমিডিয়েটে থাকতে আমার একজন বড়ভাইকে বলতে শুনেছিলাম জীবনের সবছে কঠিন কাজ হল সিদ্ধান্ত গ্রহন করা।আমি শুনে হেসেছিলাম বলছিলাম এটা কোন কথা হল? উনার কথাটা হাড়ে হাড়ে বুজেছিলাম যখন অনার্স ৩য় এর পর থেকে। একটা উচ্চ শিক্ষিত ছেলের জীবনের সবছেয়ে কঠিন সময় হল অনার্স শেষ করার পর। নিজের দায়িত্বের পাশাপাশি পরিবারের দায়িত্ব সাথে সামাজিক স্টেটাসের জন্য ভাল চাকরি খুঁজাখুঁজি,। এই চাপা কষ্টগুলি নিজের মধ্যে বাসা বাধে। আমার অবস্থাও তার ব্যতিক্রম ছিলনা।সিন্ধান্তও নিতে পারছিলাম না কি করব।একদিন হঠাৎ পেইবুকে ইকবাল বাহার স্যারের একটা পোস্ট পাই"জীবনে বলার মত গল্প শিরোনামে"একটা অনলাইন ট্রেনিং হবে। যোগ্যতা ভাল মানুষ হতে হবে। অনেক আগ্রহে অংশগ্রহণ করলাম।অনেক কিছুই শিখলাম,প্রতিটা পরামর্শ মেনে চলার চেষ্টা করা শুরু করে দিছিলাম।এবং ফাইনালি সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছিলাম যা আমি ৫ বছরে নিতে পারিনি তা একটা কথায় নিয়ে ফেলেছি তা হল "চাকরি করবনা চাকরি দিব"। সিদ্ধান নিলাম আমি এগ্রোবেজ একটা প্রাইভেট ফার্ম করব।যেখানে থাকবে ফিশারিজ,দুগ্ধখামার,প্লান্টেশন, পশু-পখির খামার। ইতিমধ্যে মাছচাষ শুরু করে দিয়েছি ৩ একর। জানুয়ারি তে ডেইরী ফার্ম শুরু হবে ইনশাআল্লাহ। এরপর ওয়ান বাই ওয়ান হবে।ইকবাল স্যারের অনুপ্রেরণা আমাকে সাহস যুগিয়েছ।উনার প্রতি আমি চির কৃতজ্ঞ।

Nazmul Hossain Bappy

প্রিয় পাঠক বৃন্দ, উছিলা ছাড়া কিছু হয়না,একজন মানুষের প্রতিটা ধাপে ধাপে উছিলা প্রয়োজন। আমি ছিলাম একজন হতাশাগ্রস্ত বেকার যুবক।খুজতে ছিলাম আশার আলো,কিন্তু কিছুতেই পাচ্ছিলাম না,কি করব?তাই নিজেকে মাঝে মাঝে ইচ্চে হত শামুকের মত গুটিয়ে ফেলি।হতাশার গ্লানি নিজেকে টুকরে টুকরে খাচ্চে।হঠাৎ একদিন চায়ের দোকানে বসে এক লোক মোবাইল থেকে কি যেন মনোযোগ দিয়ে শুনতেছে,আমি তার পাশে গিয়ে বসলাম,সে আমাকে বলল এটা কে চিন?আমি বললাম না।সে বলল এ হচ্চে এমন একজন মানুষ,যে নিজের শত ব্যাস্ততার মধ্যে থেকে মানুষকে সৎ উৎসাহ,পরামর্শ অর্থাৎ উদ্দেক্তা তৈরী করে।আর সে দিন থেকে আমি ওনার কথাগুলো মনোযোগ দিয়ে শুনি।নিজে বলার মত একটা গল্প গ্রুপে এড হলাম,স্যারের প্রতিটি মুল্যবান কথা গুলো হজম(শ্রবন)করি।নিজেকে নিয়ে ভাবতে শুরু করি,কিছু একটা করতে হবে।তবে তা হতে হবে ইউনিক কিছু।মাথায় এলো সুপার শপের,খুজতে শুরু করলাম ভালো মনের পার্টনার। পেয়ে গেলাম কিছুদিন পর।কোন রকম মা বাবা কে বলে জমি বিক্রি করে টাকা সংগ্রহ করি এবং বিজনেসের জন্য নেমে পরি।সুপার শপের ব্যবসাটা কোন রকম করে দার করাতে চেষ্টা চলছে।আর এই সব আমার গুরু,শিক্ষক, উস্তাদ সবকিছু ইকবাল স্যারের উৎসাহ,উদ্দিপনা একথায়....... ইকবাল স্যার আমার উছিলা।সেলুট স্যার।

Ali Raja

লম্বা কর্মশালার কথা বলতে গেলে আমার মাথায় একটি কথায় বার বার নাড়া দেয়, আমাদেরকে সন্তানের মত করে একজন ভাল মানুষ হওয়ার তৈরিতে যুক্তকরে বদলে দিয়েছেন আমাকে, "যা করার কথা ছিল আমার বাবা মা শিক্ষক" আর জার্নি টা আমার কাছে অতুলনীয় কারন নিজেকে নিজের কাছে আজকাল অনেক ভাল লাগে। আমি নিজের বলার মত একটা গল্পে যুক্ত করতে পেরে অনেক ধন্য মনে করি। কারন আমার গল্পটাও তৈরি করতে পারবো। আমি আহরন করেছি আপনার কাছ থেকে সবচেয়ে বড় সম্পদ " একজন ভাল মানুষ হয়ে বাচঁতে পারবো বাকী জীবনপথ। আমার কাছে সবচেয়ে বড় সুখ এখানেই। আর পরিবর্তন এর কথা আসলেই প্রথমে আসে জবাবদিহিতা কারন দিন শেষে যখন রাত আসে, তখন প্রতিটি কাজ নিয়ে নিজেকে আয়নার সামনে দাড়িয়ে প্রশ্ন করি, যা করেছি সবগুলো কাজ কি ঠিক করেছি???? তখন আমার কাছে সব পরিস্কার হয়ে যায়। আমার লাইফ পরিবর্তন এ সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করেছে নিজে নিজে কথা বলার কৌশল।।। আপনার প্রতিটি কথা আমি আমার নিজের ভিতরে নেয়ার চেষ্টা করি যতক্ষন জেগে থাকি ততক্ষন। কারন অনেক সাহস ও অনুপ্রেরণা খুজে পাই।।।

Md Sayed

"চাকরী করবো না চাকরী দেব "BE UR BOSS . বিশাল কর্মশালার এই তিনটি অক্ষর আমাকে গভীরভাবে প্রভাবিত করে। স্বপ্ন ছিল ব্যবসা করার কিন্তু সবদিকে প্রতিকূল অবস্থা। যেদিন ইকবাল বাহার ভাইয়ের অনলাইন কর্মশালায় জয়েন করলাম সেদিন থেকে নিজের উপর বিশ্বাস আরো বেড়ে যায়। এই বিশাল কর্মশালায় শিখলাম কিভাবে ফান্ডিং, মার্কেটিং, কাস্টমার কেয়ার ও নেটওয়ার্কিং করতে হয়। সর্বোপরি একজন ভালো মানুষ হিসেবে বেঁচে থাকার সবচেয়ে বড় অনুপ্রেরণাটি পেলাম। আর আমার স্বপ্ন চট্টগ্রাম শহরে আমার একটা অনেক বড় স্কুল হবে যেখানে হাজারো শিক্ষার্থী পড়ালেখা করে আলোকিত মানুষ হবে। যারা বিশ্বকে পরিবর্তন করবে। কিন্তু সামনে অনেক বাধা। ইকবাল বাহার ভাইয়ের কর্মশালায় শিখলাম কিভাবে বাধাকে অতিক্রম করে সামনে এগিয়ে যেতে হয়। এই কর্মশালাটির মাধ্যমে আমার স্বপ্ন বাস্তবায়নের একটি বড় শক্তি আমি পেলাম। ইকবাল বাহার ভাইয়ের মূল্যবান কথাগুলো মনে লালন করে আমি ও নিজের বলার মত একটি গল্প তৈরি করব ইনসআল্লাহ। অনেক অনেক ভালবাসা ইকবাল বাহার ভাইয়ের জন্য।

Ahmmed Asad Babu

আমি প্রথমে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাতে চাই ইকবাল বাহার স্যার কে। যিনি হাজারো ব্যাস্ততা এর মাঝে আমাদের কে স্বপ্ন দেখতে শক্তি জুগিয়েছেন এবং সেই স্বপ্নকে বাস্তবে রুপ দেয়ার জন্য নিজের অনেক মূল্যবান সময় দিয়ে আমাদেরকে তৈরি করছেন। কি শিখেছি কি পরির্তন বলে বা লিখে শেষ করা যাবেনা ,শুধু একটা কথাই বলবো একটা ভাল মানুষ হতে যে গুন্ গুলো প্রয়োজন,সেই গুণ গুলো জানতে পেরেছি এবং নিজের ভিতরে লালন করি। মানুষকে মন থেকে সন্মান এবং ভালোবাসতে শিখেছি। অাশা ছিল এই প্রোগ্রাম থেকে একজন ভাল মানুষ হয়ে নিজের জন্য নিজের পরিবারের জন্য এবং দেশের জন্য ভাল কিছু করবো সেই স্বপ্ন নিয়ে সামনের দিকে এগোচ্ছি। জীবনে অনেক কিছু শিখার বাকী ছিল তা জানলাম স্যারের শিক্ষা থেকে। স্বপ্নীন, পাগল,উদ্দেশ্যহীন ছেলে টা অাজ নীজেকে ভাল মানুষ বলে দাবি করে এটাই হল অামার বড় শিক্ষা, পরির্তন, অর্জন।

Abu Bokar Siddik

প্রথমে ভালবাসা প্রিয় ইকবাল বাহার স্যার কে, তার পাশাপাশি এই গ্রপের সবাইকে যারা সহযোগি বন্ধ হয়ে এতোটা দিন পাশে ছিলেন এবং আগামিতে থাকবেন। স্যার এর ভালবাসাই আমাদের এই জার্নিটা ছিলো আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ ও চমৎকার ভাবে জীবনে বলার মত একটা সময়। জার্নিটি থেকে নিজের লাইফটা কে চেন্জ করতে পেরেছি এবং শিখতে পেরেছি_জীবনে ভাল ভাল কাজ করার স্বপ্ন দেখেছি এবং প্রস্তুতি নিতে শিখেছি। একে অন্যকে শ্রদ্ধা /সম্মান /ভালবাসতে এবং নিঃশর্তে দেশজুড়ে সমাজের ভাল কাজ করতে শিখেছি। ব্যাবসা করার জন্য মুলধন জোগাড় করতে শিখেছি। নিজেকে ভালবেসে, নিজের নামকে ভালবেসে বুক ফুলিয়ে নিজের পরিচয় দিতে শিখেছি, মূল্যবোধ বৃদ্ধি। জীবনে যাই করি না কেন প্রথমে একজন ভাল মানুষ হতে হবে এটা জেনেছি এবং আগামীতে নিজের ভাল মানুষ হবো এবং ভাল মানুষের পাশে থাকবো। স্যার আমার জীবন এখন এটা চাচ্ছে আমি কমপক্ষে ১০টা পরিবার চালাবো। এর জন্য স্যার আপনার দোয়া ও সহযোগিতা চাচ্ছি।

নুসরাত জাহান

কিছু কিছু কথা আছে বলে শেষ করা যায় না তারপরও শেষ করতে হয়। নিজের বলার মতো গল্প গ্রুপে না থাকলে হয় তো জীবনে অনেক কিছু জানা হতো না। অত্যন্ত আনন্দের সাথে প্রতিটি ক্লাস করেছি। প্রতিটি ক্লাসে আমি নিজেকে নতুন করে জেনেছি। উদ্যোক্তা হওয়ার অদম্য বাসনা মনকে বার বার শিহরিত করেছে । একটি বীজ বপন করার আগে কি কি করনীয় এবং বীজ বপন করার পর কিভাবে পরির্চযা করতে হবে । আপনি সেই উদ্যোক্তা বীজটির পরিচর্যা ও দিকনির্দেশনা দিয়েছেন। কখনো ভাবিনি একজন মেয়ে হয়ে মৌলভীবাজার জেলা থেকে এমন সেরা কিছু পাব। সবই সম্ভব হয়েছে আপনার অকৃত্রিম ভালবাসায়। এক কথায় একজন ভালো মানুষ ও ভাল উদ্যোক্তা হবার জন্য যেসব গুন নিজের মাঝে থাকা দরকার তার সব শিক্ষাই পেলাম। স্বপ্ন দেখা ভুলে গিয়েছিলাম। কিন্তু এখন স্বপ্নের পিছনে হাঁটছি। নিজের বলার মতো গল্পের সাহায্য অনেক দূর এগিয়ে যাচ্ছি । নিজের প্রতি বিশ্বাস সৃষ্টি হয়েছে সাফল্য একদিন আসবেই। শুধু লেগে থাকতে হবে।

Iqbal Smartlink

আমি প্রথমে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাতে চাই Iqbal Bahar ভাইয়াকে এই রকম একটি ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নেওয়ার জন্য সেই সাথে আমাকে "নিজের বলার মত একটা গল্পে" এড করার জন্য । এই জার্নিটা এক কথায় অসাধারণ !! আমার জীবনে একটা লক্ষ্য ছিল চাকুরি করবো না, চাকুরি দিবো এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৩সাল থেকেই উদ্যোক্তা হওয়ার লক্ষ্যে কাজ শুরু করি ।কিন্তু কাজের ধারাবিকতা না থাকায় এতটা সফল হতে পারিনি তবে লেগে ছিলাম , যা এই কোর্সে ভাইয়া আমাদের শিখিয়েন। এটাও শিখিয়েন কিভাবে সৎ থেকে বিভিন্ন আইডিয়া প্রয়োগ করে ভালো ব্যবসা করা যায় । সবচেয়ে বড় কথা হল ব্যবসায় শিক্ষার ছাত্র হিসেবেও অনেকগুলো নতুন টপিক শিখেছি যা আমার বর্তমান বিজনেসে কাজে লাগিয়ে আরো ভাল ব্যবসা করতে পারবো । বর্তমানে আমার ৩টি ক্ষুদ্র প্রতিষ্ঠান আছে সবার কাছে দো য়া চাচ্ছি যেনো ভাইয়ায় কথা মত অনেক মানুষের চাকুরি দিতে পারি এবং নতুন নতুন উদ্যোক্তা তৈরি করতে পারি । #সবশেষে আবারো কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি ভাইয়ার প্রতি আমাদেরকে নিঃসার্থভাবে নিজের মূল্যবান সময় দিয়ে ,সাহস দিয়ে একজন ভালো হওয়ার জন্য অনুপ্রাণিত করার জন্য । দোয়া ভালোবাসা রইল 😍 😍 😍 😍

Bhuiyan Shabbir

আমার জীবনে আমি যা চেয়েছি তাই আমার বাবা মা আমাকে দিয়েছে। ব্যবসা করার জন্য টাকা দিয়েছে কোন অভিঙ্গতা ছাড়াই শুরু করিলাম ব্যবসা। মানুষের কথায় প্রভাবিত হয়ে করেছি ব্যাংক লোন। অল্প বয়সে এত টাকা পেয়ে দেয়েছি অনেক বাকী। আমি কিছু বুঝি নাই সব মানুষের উপর নির্ভর ছিলাম আমি শুধু boss এর চেয়ারে বসে অডার করতাম। এখন আমার সব শেষ হয়ে গেছে সাথে নিয়ে চলতে হচ্ছে ব্যাক লোন। আমি ভেবেই নিয়েছিলাম আমার আর কিছু হবে না। সারাদিন শুয়ে বসে কাটাতাম। এই গ্রুপে এসে আমি বুঝতে পেরেছি আমার ভুল গুলো আমি ভাল মানুষ ছিলাম না। এখন আমি একজন ভাল মানুষ হতে পারছি,নিজে কাজ শিখছি, সময় দিতেছি পরিবারকে, আমি এখন ভাল কাজ করি, মিথ্যা বলি না। এই গ্রুপ থেকে শিখেছি একা কাজ করার চাইতে ভাল একটা টিম তৈরি করে পার্টনারশিপ হয়ে করা অনেক উওম যা আমি আগে চাইতাম না। মার্কেটিং করতে পারতাম না এখন শিখেছি, এখন আমি অন্যের সফলতা দেখে হিংসা করি না এখন আমি অনেক আত্ববিশ্বাসী যে আমিও পারব আবার সফল হতে যেখান থেকে শেষ সেখান থেকেই আবার শুরু হবে, আমারও হবে নিজের বলার মত একটা গল্প।

Md Mosharof Hossain

বর্তমান সাথর্পর, একা চলার নিতিতে পরিবার ব্যক্তি চলার যে প্রতিযোগিতার যে হতাসা বিরাজ করছে,ঠিক সেই মূর্হতে আপনার আমাদের সামনে আসা, ব্যক্তি,সমাজ পরিবারের কত বড় মজবুত ভিত্যিস্তাপন করেছেন, তা কল্পনারঅতিত। জার্নি টা ছিল গহিন গর্ভে নিভেজাওয়া প্রদীপ মিটি মিটি করে জলেওঠার একজাক জোনাকি পোকারমত,। যা কিছু শিখা, জীবনটাকে চেনা,জীবনের চলার গতির বার্সাম্যতা, ভেংগে পরা ডাল আবার সোজা হয়ে ওঠার যে শক্তি রসদ তা আপনর বিশালতা থেকে শিখা। পরিবর্তন এটা বুঝতে পারছে আমার আসে পাশে যারা আছে,আমার একান্তু মানুষ, তাদের চোখের চাওনি দেখে বুঝা যায়,মুখে ভাষা হারিয়েভেলেছে এতটুকু পরিবর্তনে কৃতঋণ আপনি।

Nazmul Hasan Naiem

জীবনের বলার মত গল্প গুরুপটি একটি অসাধারন মহাত উদ্যেগ এর প্রতিফলন। আমার কাছে মনে হচ্ছে এাই গুরুপের সাথে যুক্ত হওয়াটা ছিল আমার জন্যে মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে উপহার স্বরুপ। * এইগুরুপের সাথে কাটান দিনগুলি আমার জন্যে এক অসাধারন আত্মতৃপ্তির ও স্বরনিয় সময়।যা আমার দ্বারা ভাসায় প্রকাষ করা সম্বব নয়,প্রতিটা দিন মনে হয়েছিল এক একটা ঈদের দিন আর প্রতিটা পোষ্ট ছিল অসাধান এক অমিয় বানি প্রাতিটা কথা ছিল এক অদৃস্ব সুতায় বাধা অটুট বন্ধন যা ছোয়া যায়না মুগ্ধ নয়নে তাকিয়ে দিখা যায় ও অন্তর এর অন্তর স্থল থেকে অনুভাব করা যায়। * আমার জীবনে শেখা শ্রেষ্ট শিক্ষা গুলর মধ্যে অন্যতম কিছু শিক্ষা পেয়েছি এই গুরুপ থেকে।যা আমার আগামি দিনের চলার পথের সাথি হিসাবে কাজ করবে। * মা বাবা ছোটবেলা থেকেই এতবেশী আদর আর ভালবাসা দিয়ে বড করেছেন যে দুখকষ্ট এর লেষ মাএ কাছে আসতে পারেনি। এজন্য স্বাভাবিক ভাবেই বাইরের পৃথিবী সম্পকে ছিলাম একদমই অপরিচিত,আমি এরকম ছিলাম একটা কলম হারাবার টেনশন ও নিতে পারতাম না। মনেহত আমার দ্বারা কিছু হবেনা, আল্লাহর অষেশ রহমাতে ও এই গুরুপের সাথে কাটান সময় গুল এর পরে এতটাই মনবল তৈরী হয়েছে যে মনে হয় বীর আলেকজেন্ডার এর মত বিশ্ব জয় করে ফেলতে পারব।ছোট বেলা থেকেই খুব বেশী স্বপ্ন বাজ ছিলাম এখর আরও ম্বপ্ন তৈরী হয়েছে যে আমার স্বপ্ন গুল এখন পাহাড়ের মত বিশাল যেন আকাশ ছুতেচায়।শুধু স্বপ্নই দেখী না এই স্বপ্নকে কিভাবে বাস্তব রুপদেওয়া তারও চেষ্টাকরি।প্রতিদিন ঘুমাবার সময় এই বলে ঘুমাই একদিন আমি এরকম মহাত মানুষে পরিনত হব যার মহাত্ত ও উধারতার কথা সবাই শ্রদ্ধা ভরে স্বরন করবে। সবষেশে এতটুই চাইব,অমর হয়ে থাক এই গুরুপ পৃথিবীর বুকে যুগ যুগ ধরে কল্যান করে যাক বাংলার মানুষের।আল্লাহ সহায় হোক সবার উপরে দিঘ জীবিহোক ইকবাল বাহার ভাই।

Mazed Islam

প্রথমেই আমি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাতে চাই আমার শ্রদ্রেয় প্রিয় ইকবাল বাহার স্যারকে।কেননা স্যার যদি ‘নিজের বলার মত একটা গল্প’ এই কর্মশালার উদ্দ্যেগটি না নিতেন তাহলে হয়তো আজ আমি নিজের বদলে যাওয়া অভিজ্ঞতার কথা বলতে বা লিখতে পারতাম না।এই জার্নিটা ছিল অসাধারন,অতুলনীয় আমার জীবনের সেরা জার্নিগুলোর একটি।‘নিজের বলার মত একটা গল্প’এ কর্মশালায় অংশগ্রহন করে আমি শিখতে পারলাম জীবনে জয়ী হতে হলে প্রথমেই প্রয়োজন একজন ভাল মানুষ হওয়া।তাছাড়া নিজেকে ভালবাসা,নিজের কাজের প্রেমে পড়া,নিজের উপর বিশ্বাস রাখা।লোকের সমালোচনাতে কান না দেওয়া।কাজ দিয়ে সমালোচনার উপযুক্ত জবাব দেওয়া।সফলতা লাভ করতে হলে ৪“স” – সুশিক্ষা, সুস্বাস্থ্য, সুখ ও সম্পদ উপস্তিত রাখতে হবে।এই চারটির ১টিও অনুপস্তিত মানে আপনি সফল নন।জীবনে বড়,সফল ও সুখি হবার জন্য পজিটিভিটির কোন বিকল্প নেই।‘নিজের বলার মত একটা গল্প’কর্মশালাটি আমার সকল ভয়-ভীতি দূর করে সততা,সাহস,আত্নবিশ্বাস অনেকগুন বাড়িয়ে দিয়েছে।যা আমাকে সারাজীবন এগিয়ে যেতে সাহায্য করবে।এখনো উদ্যোক্তা হতে পারিনি,তবে উদ্যোক্তা হওয়ার সপ্ন যেন আমার নেশায় পরিনত হয়েছে।মনের গহিনে এখন একটাই স্লোগান চাকরি করব না চাকরি দেব।একটি কোম্পানি বা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করব যাতে করে কিছু লোকের কর্মসংস্তানের ব্যাবস্তা করে দেশ ও সমাজের বেকারত্বের হার কমাতে কিছুটা হলেও অবদান রাখতে পারি সেই ব্যাবস্তা করব। পরিশেষে বলতে চাই ‘নিজের বলার মত একটা গল্প’ ২য় ব্যাচের সাথে যুক্ত থাকতে পেরে আমি গবিত।‘নিজের বলার মত একটা গল্প’একদিন তৈরী করবই।ইন-শা-আল্লাহ...

G.M. Shahinur Alam Rasel

শুরু থেকেই অনেক আগ্রহ ছিল এই কর্মশালায় কি কি বিষয়ে শিখাবে, নিজেরাই বা কিভাবে শিখবো । স্যার আমি যখন ছোট তখন থেকেই মায়ের ইচ্ছা ছিল আমি যেন পড়ালেখা শিখে বড় চাকরি করি, আর আমার ইচ্ছা ছিল পড়ালেখা শিখে আমি যেন ভাল মানুষ হতে পারি। হাটি হাটি-পা পা করে আজ আমার বয়স প্রায় ৩০ , পড়ালেখা বলতে এত টুকুই - ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং গ্রাজুয়েশন শেষ করেছি - ২০১৭ তে, ছোট একটা চাকরীও করি । মানুষ হিসাবে পরিবার,আত্মীয়,প্রতিবেশী কারও কাছেই খারাপ না । কিন্তু......... মা'য়ের ভীষণ ইচ্ছা এখন চাকরির পাশাপাশি ভাল একটা বিজনেস করি,আমারও খুব ইচ্ছা । মা আমাকে এই বিষয়ে মানসিক ভাবে অনেক সাপোর্ট দেয় ।স্যার এর মাঝেই নিজের বলার মত একটা গল্পের গ্রুপ এ যুক্ত হয়েগেছি আসম্ভব কিছু ভাল বন্ধুদের সাথে । যাদের সাথে খুজে পেয়েছি আপনার মত নিবেদিত প্রান আদর্শ একজন মানুষ কে ,স্যার আপনার কাছে এতটুকু চাওয়া কখনও আমদের ছেড়ে চলে যাবেন না । আমাদের সৃজনশীলতা,সততা, পরিশ্রমই আমাদের বিজনেস এর ভবিষ্যৎ নিধারন করবে কিন্তু আপনার মত মানুষের সংস্পর্শে থাকলে আর যাই হোক একজন ভাল মানুষ হওয়ার পথে অনেক দুর এগিয়ে যেতে পারব ইনশাআল্লাহ্ । কারন এখান থেকে প্রতিদিনি চমৎকার এবং অসাধারন কিছু না কিছু শিখছি। এই বিজনেস প্লাট ফরমে আসার সুযোগ পেয়ে বিজনেস এর আগ্রহ এতটাই বেড়ে গেছে ,সত্যি কথা বলতে বাধা নাই আমার অফিস এ ,রাস্তাই যেতে, ঘুমাইতে সবখানেই বিজনেস নিয়েই এখন চিন্তা করি, কবে একটা বিজনেস দাঁড় করাতে পারবো ? সবার জন্য শুভ কামনা রইল ।

Shofiul Mamun

স্যার,যখনি নেট অন করি, আগে দেখি আপনি কিছু পোষ্ট করছেন কিনা।সবার সাথে কথা বলা, আপনার দিকনির্দেশনা মানা সব কিছুই অসাধারণ। #জীবনের ২৪ বছরের মধ্যে মনোযোগ দিয়ে আপনার পোষ্ট গুলাই বেশি পড়া হয়েছে ।এতটাই ভালো লাগে। # সবচেয়ে বড় শিক্ষা হচ্ছে সৎ হওয়া।মানুষকে সম্মান করা, ভালোবাসা,নিজে ভালো থাকার সাথে সাথে আশেপাশের মানুষ কে খুশি,ভালো রাখা,সাহস দেওয়া। # বাস্তব জীবনে অনেক সাহস বাড়ছে,সপ্ন দেখতে শিখেছি,তা কিভাবে বাস্তব রূপ দিতে হয়,সুশিক্ষা, সুস্বাস্থ্য, সুখ ও সম্পদ এই ৪টা থাকলে আমরা সফলতা লাভ করেছি। # "ইকবাল বাহার" স্যারের মত আমি ও হতে চাই।জীবনে বলার মত একটা গল্প গল্প তৈরি করবোই,,,,ইনসাহআল্লাহ #স্যালুট_স্যার_আপনাকে

Md Bayezid Hossain

আমার জীবন যখন অনিশ্চয়তার অন্ধকারে নিমজ্জিত ছিলো তখনই আলোর মশাল ধরে আমাকে এগোতে সাহাজ্য করেছেন প্রিয় "ইকবাল বাহার"স্যার। এই কর্মশালা আমাকে নতুন করে বাচতে শিখিয়েছে এবং স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথ দেখিয়েছে। এই জার্নিটা ছিলো আমার জীবনের শ্রেষ্ট জার্নি। এই জার্নি যিনি পরিচালনা করছে তিনি আমার জীবনের প্রিয় শিক্ষকের জাইগা দখল করে নিয়েছেন আমি স্যারের প্রতি চীরো কৃতজ্ঞ। নিজের পায়ের মাটিকে শক্ত করে একজন সফল ও ভালোমানুষ কিভাবে হতে হয় সেই অমূল্য শিক্ষাটা এখান থেকে পেয়েছি। আমার জীবনের সবচেয়ে বড় পরিবর্তন হচ্ছে চার "স" কে বুঝতে পারা। আর কারো সাথে জোরে কথা বলতে গেলে বাধা আসে মনে পড়ে যাই আমাদের এই ককোর্সটার কথা, মনে পড়ে যাই প্রিয় মানুষ "ইকবাল বাহার স্যারের কথা। এগিয়ে যাওয়ার কথা বললে আমি আমার জীবনের সাথে এখন বদ্ধপরিকর যে আমাকে একজন সফল উদ্যক্তা হতেই হবে।

মুহাম্মদ মুবিন উদ্দীন

চাকরী করবো না চাকরী দেব এই লেখাটি প্রথম দেখাতেই মনের ভেতরে একটা ভা্ল লাগা অনুভব করেছি,এক কথাই বলতে গেলে এই লম্বা কর্মশালা টা অসাধারন ছিল,এখান থেকে শিখেছি ভাল এবং সৎ মানুষ হওয়ার কোনো বিকল্প নাই, আগে স্বপ্ন দেখতাম কিন্তু স্বপ্ন গুলি হারিয়ে যেত, বিশ্বাস করেন আজ ৪১ তম দিন কর্মশালার এই ৪১তম দিনের মধ্যে এক মিনিট ও আমার স্বপ্ন দেখা বন্দ হয় নাই হবেও না যতদিন না সফল না হয় ইনশাআল্লাহ, এখন আমার মাথাই দুই টা চিন্তা ভাল সৎ একজন মানুষের মত মানুষ হবো,কবে একটা ব্যবসা দাঁড করাতে পারবো....?মোটকথা এই টা বলবো ইকবাল বাহার স্যার এর মত সাদা মনের মানুষ আমি আমার জীবনে দেখিনাই,ওনাকে আমি ধন্যবাদ দিয়ে ছোট করবো না।আপনার প্রতিচির কৃর্তক থাকিব,

সাইফুল ইসলাম মারুফ

“নিজের বলার মত একটা গল্প”। এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে আমার জন্ম দিনটি ছিল তিন এপ্রিল ২০১৮ নিজের ফেইসবুক ওয়ালে দেখছিলাম অনেকেই আমাকে উইশ করেছে। দেখতে দেখতে ফেইসবুকে কোন এক বড় ভাই লাইক দেওয়ায় আমার ওয়ালে একটা পোষ্ট ভেসে আসলো > ১০০০ জন তরুন তরুনীকে নিয়ে শুরু হচ্ছে আমাদের ২য় ব্যাচ। আমি মনে করলাম এটা কিসের ২য় ব্যাচ ? তাই ভাল করে লেখাটা পড়লাম। লেখাটা ছিল “ইকবাল বাহার” নামের কোন এক ব্যক্তির যাকে আমি আগে কখনো দেখিনি তবে ইউটিউবের ভিডিওতে একবার দেখেছিলাম তিনি একজন বক্তা এবং উদ্যোক্তা কিন্ত আমার জানা ছিলনা কে এই “ইকবাল বাহার” ! অনেক ব্যস্ততার মধ্যে অতি আগ্রহের সাথে ২য় ব্যাচের ক্লাস গুলিতে অংশ গ্রহণ করলাম এবং আমি আমার অন্তর থেকে বলছি “ইকবাল বাহার স্যারের মত দেশ সেরা একজন ভাল মানুষের সন্ধ্যান পেলাম যা আগে কখনো ভাবতেও পারি নাই যে এত ভালো মানুষ আমাদের দেশে এখনো আছে যার অনুপ্রেরনায় হাজার হাজার তরুন তরুনী স্বপ্ন দেখে বেঁচে থাকার, স্বপ্ন দেখে একজন ভাল মানুষ হবার, যার অনুপ্রেরনায় হাজার হাজার তারুন তরুনী আজ ভালো মানুষ হিসাবে পরিনত হচ্ছে। আসলে এরকম “ইকবাল বাহার” দরকার ছিল প্রতিটি জেলায় জেলায় তাহলে আমার মনে হয় আমাদের দেশে কোন একটা ধর্ষক, নেশা খোর, চুরি, ছিন্তাই করার মত মানুষ থাকতো না। আমার জানা নাই মানুষকে কতটা ভালোবাসলে কোন ফি ছাড়া নিজের মেধা, শ্রম, সময় সবকিছু অন্যের পিছনে ব্যয় করা যায়। প্রিয় ইকবাল বাহার স্যার আপনি শুধু “নিজের বলারমত একটা গল্প” গ্রুপের মেম্বরদের প্রিয় মানুষ নন আপনি বাংলাদেশের অহংকার, আপনি হাজার হাজার বাঙ্গালী তরুন তরুনীর প্রিয় “ইকবাল বাহার” আমরা আপনাকে অনেক ভালোবাসি, আমি গ্রামে বসবাস করায় বৈদ্যতিক সমস্যা, ইন্টারনেট সংযোগ না থাকা ইত্যাদি কারনে সবগুলি ক্লাসে অংশ নিতে পারি নাই তবে প্রতিটি ভিডিও আমি সময় নিয়ে পরে দেখেছি এবং পোষ্ট গুলি পড়েছি আমি এই ৬০ দিনের কর্মশালা থেকে শিখতে ও জানতে পেরেছি কিভাবে একজন ভালো মানুষ হতে হয়! কিভাবে সমাজের জন্য কাজ করতে হয়! কিভাবে দেশের জন্য কাজ করতে হয়! আপনার দেওয়া ক্লাস গুলি শুধু উদ্যোক্তাই তৈরী করছে না, আমি মনে করি “নিজের বলারমত একটা গল্প” গ্রুপটি ভালো মানুষ তৈরীর কারখানা, এখানে আসলে মানুষেরমত মানুষ হওয়া যায়, নিজেকে চিনতে পারা যায়, একজন ভালো মানুষ হিসাবে বেচে থাকার স্বপ্ন দেখা যায়, আমি আপনার ক্লাস গুলি থেকে যা শিখেছি আজীবন আমি তা আমার মধ্যে ধরে রাখতে চাই, আমি আমার স্বাধ্য অনুযায়ী তা মানুষের জন্য, সমাজের জন্য, দেশের জন্য কাজে লাগাতে চাই। আপনার অনুপ্রেরনাই আমার ভালোলাগা। স্যার আমি সারাজীবন আপনার অনুপ্রেরনা পেতে চাই, আপনার দীর্ঘায়ু, সু-স্বাস্থ্য ও শুভ কামনা করছি। আমি চির কৃতজ্ঞ স্যার আপনার প্রতি।

Saiful Saif

সম‌য়ের সাহসী পদ‌ক্ষেপ নেওয়া একজন বু‌দ্ধিমা‌নের কাজ।যা অনেক আগে থে‌কে জানার সু‌যোগ হ‌য়ে‌ছি‌লো।‌কিন্তু কে‌নো যা‌নি হ‌চ্ছে হ‌চ্ছেনা,কর‌ছি কর‌ছিনা,পার‌বো পার‌বোনা ক‌রে এ‌গি‌য়েও পি‌ছি‌য়ে যা‌চ্ছিলাম।আর ঠিক সে মুহুর‌ত্বে সক‌লের মেন্টর,ভা‌লো মানুষ গড়ার কা‌রিগর,উ‌দ্দ্যোক্তা বানা‌নোর ইন্ডা‌ষ্ট্রি, আমা‌দের সক‌লের সম্না‌নিত ইকবাল বাহার স্যা‌রের ছায়ার আগমন "নি‌জের বলার ম‌তো এক‌টি গল্প" তৈরীর প্লাটফর্ম সব বদ‌লে দি‌তে শুরু ক‌রে।সব চাই‌তে বে‌শি মুগ্ধকর ছি‌লো সবাই‌কে একজন ভা‌লো মানুষ হ‌তে আহ্বান করা।য‌দিও নি‌জের অন্যান্য কিছু যৌথ ব্যবসায়িক প্র‌তিষ্ঠান র‌য়ে‌ছে।যা অন্যের সা‌থে আমি ব্যবসা‌য়িক পার্টনার কিন্তু আমার সা‌থে কেউ আগে পার্টনার হয়‌নি।তাই চে‌লেঞ্জ নিলাম স্যা‌রের এক‌টি কথা থে‌কে "আপ‌নি য‌দি সৎ হন,ক‌মিট‌মেন্ট ঠিক রা‌খেন, প‌রিশ্র‌মী হন,আর য‌দি ভা‌লো এক‌টি আইডিয়া থা‌কে বি‌নি‌য়ো‌গের জন্য ব্যবসা আটকা‌বে না" ব্যাস শুরু করলাম আইডিয়া ডে‌ভোলাপ করার কাজ।মাথায় চ‌লে আস‌লো ছোট খা‌টো এক‌টি আইডিয়া।‌শেয়ার করা শুরু করলাম নিজস্ব নেটও‌র্কের মা‌জে,খুব সহ‌জে পে‌য়ে গেলাম ২৪ জন বি‌নি‌য়োকারী,সবাই খুব সহ‌জে প্লান রি‌সিভ করা দে‌খে নি‌জের সাহসটা আরো বে‌ড়ে গে‌লো।আ‌মি সহ ২৫ জ‌নের প্রাথমীক বি‌নি‌য়োগ মাত্র ১০ হাজার টাকা ক‌রে, মোট ২'৫০'০০০৳ ব্যবসা আপনা‌দের সাম‌নে দেশী বি‌দেশী থ্রি‌পিচ।আর স্লোগান দিলাম (হাত খর‌চের টাকা প্র‌তিষ্ঠান/ব্যবসা গ‌ড়ি)। প্র‌ত্যে‌কের ক‌মিট‌মেন্ট আগামী ২/৩বছ‌রে প্র‌ত্যে‌কের বি‌নি‌য়োগ হ‌বে স‌র্বোচ্চ ১ লক্ষ টাকা ক‌রে। আর তিন বছর কোন লাভ নি‌বোনা,কাজ হ‌বে আমা‌দের পার্টটাইম, নেটওয়ার্ক হ‌বে প্রথম ৫ বছর বাংলা‌দেশ। পরব‌র্তি‌তে ওয়াল্ড ওয়াইট।বিস্তা‌রিত তু‌লে ধর‌তে না পারায় দুঃ‌খীত,পরব‌র্তি‌তে আস্তে আস্তে তু‌লে ধর‌বো। ত‌বে সব কিছু সম্বব গুরু ইকবাল স্যা‌রের সে‌ক্রিফাইজ মানু‌ষিকতার কার‌নে,‌তি‌নি যে ভা‌বে নি‌জে‌কে সে‌ক্রিফাইজ ক‌রে আমা‌দের‌কে নি‌য়ে টানা ৬০দিন কর্মশালা ক‌রে‌ছেন স্যালুট স্যার,কৃতজ্ঞতা সারা জিবন আপনার প্র‌তি।‌দোয়া কর‌বেন আমি যে‌নো আপনার শ্রেষ্ঠ ছাত্র আর বাবা মা‌য়ের শ্রেষ্ঠ সন্তান ও সমা‌জের শ্রেষ্ঠ একজন ভা‌লো মানুষ হ‌তে পা‌রি।ধন্যবাদ গ্রু‌ফের সকল ভা‌লো মানু‌ষদের যারা গ্রুপটি‌কে অলং‌কিত ক‌রে‌ছেন।আমরা সবাই মি‌লে স্যা‌রে দিক নি‌র্দেশনায় সব‌চে‌য়ে বড় ব্যবসা‌য়িক নেটওয়ার্ক তৈরী কর‌বো এবং ভা‌লো মানুষ হ‌য়ে বেঁ‌চে থাক‌বো মানুষের হৃদ‌য়ে স্থান নি‌য়ে এ কামনায় আল্লাহ হাফেজ।

Yousuf Miah Dhaka

প্রবাসে বসে চিন্তা করেছিলাম দেশে গিয়ে কি ব্যবসা করব I হঠাৎ করে ইউটিউবের মাধ্যমে ইকবাল বাহার স্যার এর সন্ধান পাই এবং দ্বিতীয় ব্যাচ যুক্ত হই I এই কর্মশালা থেকে অনেক কিছু শিখেছি সবার আগে একজন ভাল মানুষ হওয়া I এই গ্রুপে আমাকে স্বপ্ন দেখতে শিখিয়েছে, সাহসী হতে শিখিয়েছে এবং লেগে থাকতে শিখিয়েছে, একবার হেরে গেলে চলবে না মেধা ও পরিশ্রম দিয়ে বারবার চেষ্টা করতে হবে I এ কর্মশালার মাধ্যমে শিখেছি একজন ব্যবসায়ীকে সৎ হতে হবে এবং ধৈর্য সহকারে কাজ করতে হবে তাহলে সফলতা আসবে I একটি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করব যাতে করে সমাজের কিছু লোকের কর্মসংস্থান ব্যবস্থা করতে পারি I সৎ এবং নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাব একদিন সফলতা আসবেই এবং একদিন নিজের বলার মত একটা গল্প হবে I

Lajuk Kumari Mahmuda Khan

আমি মাহমুদা খান! জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কম্পিউটার সাইন্স&ইঞ্জিনিয়ারিং এ বি.এস.সি করছি! সেই ডিসেম্বর মাসে ভাইয়ার ১ম পোস্ট -"চাকরি করবোনা,চাকরি দেবো " এই একটা বাক্য আমাকে ভীষণ ভাবে নাড়া দিয়েছিল,,,প্রচন্ড আগ্রহী বলে যুক্ত হই -এই ৯০ দিনের লম্বা কর্মশালা ছিল জীবনের পরম পাওয়া ও গুরুত্বপূর্ণ এক শিক্ষা! এই বিশাল কর্মশালার মাধ্যমে আমি আমাকে খুজে পেয়েছি অন্য রকম ভাবে! কথা ছিল-অন্য সাত-পাচজনের মত ভালো করে লেখাপড়া করে চাকরী-বাকরী ও তারপর.. খুবি সংরক্ষণশীল পরিবারের মেয়ে যে আমি! কিন্তু আজ আমি আর সেই গন্ডিতে আটকে নেই!ভাইয়ার এই কর্মশালা আমাকে নিজেকে আবিষ্কার করতে শিখিয়েছে, স্বপ্ন দেখতে এবং তদানুযায়ী তা বাস্তবায়নের পথ ও তিনি দেখিয়েছেন।শিখেছি- কমিন্টমেন্ট সম্পর্কে, সময় ও নিয়মানুবর্তিতা, একে অন্যকে শ্রদ্ধা-সম্মান এবং প্রীতি ও ভালোবাসার সাথে নিজেকে ও অন্যকে উৎসাহিত করা,নিজেকে ভালোবাসা ও নিজের, মা-বাবার ও আশে-পাশের সবার জন্য কিছু করার মানসিকতা। সম্প্রতি আমি, "#নাসা -র পারর্সোনাল রিসার্চ সেন্টার এর এসিস্ট্যান্ট ও উনার ই প্রতিষ্ঠিত #বাংলাদেশ_এডভান্স_রোবটিক্স_রিসার্চ_সেন্টার এ কাজ করার সৌভাগ্য ও সুযোগ পেয়েছি, আলহামদুলিল্লাহ!যার অবদান একমাত্র #ইকবাল_বাহার ভাইয়ার এই প্লাটফর্ম! এই প্লাটফর্ম এর মাধ্যমেই আমি আমার গন্তব্য খুজে পাই ও ভাইয়ার দেখানো পথে চলে নিজেকে প্রমাণ করে নির্বাচিত হয়েছি।আমার আজকের এই পরিপূর্ণতার সবটুকু কৃতিত্ব #নিজের_বলার_মত_গল্প এর ও এই ৯০দিনের কর্মশালার সাফল্যমন্ডিত ফলাফল! আসলে এর অবদান বলে শেষ করা যাবেনা,কারণ,আজকের এই দুনিয়ায় কেউ কারো জন্য এইভাবে ভাবে না যার #ইকবাল_বাহার ভাইয়া এক অনন্য উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত, তাও আবার ফ্রি!! তাই সর্বোপরি #ইকবাল_বাহার ভাইয়ার সার্বিক মংগল কামনা করছি! ধন্যবাদ ও আপনার জন্য কম হয়ে যাবে,#ভাইয়া! আন্তরিক ধন্যবাদ আমার সহোদর ভাইয়াও আপুদের! #রচনা করবো- "নিজের বলার মত- একটা মিষ্টি গল্প" ইনশাআল্লাহ!!! সকলের নিকট দোয়া প্রার্থী..! আসলে দায়িত্ব পাওয়ার থেকে ধরে রাখাটা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ! সবাই ভালো থাকবেন,

Nur Nabi

প্রিয় ইকবাল বাহার স্যার,আসসালামু আলাইকুম।ভালোলাগা থেকে যদি ভালবাসার উৎপত্তি হয়,তবে সত্যি আপনাকে অনেক ভালবাসি।আপনার গ্রুপে জয়েন করার পূর্বে অাধুনিকতার যন্ত্রে আপনার ৯-৫ টার একটি ভিডিও দেখার সুভাগ্য আমার হয়েছিল।সেখান থেকে আপনাকে ভালোলাগা,ভালবাসা আর আপনাকে খোঁজে চলা।আপনাকে খোঁজতে গিয়ে খোজে পেলাম একটি ব্যবসায়িক তথ্য সমৃদ্ধ জ্ঞান ভান্ডার আর একজন আদর্শবান সৎ,সাহসী ক্যাপ্টেন।আমি দৃঢ় ভাবে বিশ্বাস করি আপনার এই তথ্য জ্ঞান আমাকে আমার গন্তব্য পৌছে দিবে।"নিজের বলার মত একটি গল্প" সত্যি অসাধারণ।আমার বিশ্বাস অল্প সময়ের মধ্যে "নিজের বলার মত একটি গল্প" একটি ইতিহাস গড়তে যাচ্ছে।গল্পও একদিন ইতিহাস হবে সেই দিন বেশি দুরে নয়।অাপনার একটি কথা আমাকে ভিষন অবাক করেছে,সত্য বললে তা মনে রাখতে হয়না।একজন ভালো মানুষ না হয়ে কখনো এমন কথা বলা যায় না।আপনার কথায় আপনার পরিচয়। সত্যি স্যার,সততা আর সত্যের জয় নিশ্চিত।(বার বার প্রমানীত)।যদিও এটি একটি চলমান প্রক্রিয়া,ধারাবাহিকতা রাখতে পারলে সফলতা সুনিশ্চিত ভাবে আসবে আমি শতভাগ বিশ্বাস করি।স্যার ২০০৮ সাল থেকে মার্কেটিং এর সাথে নিজেকে জড়িয়েছি। অনেক বাধা বিপত্তি পেরিয়ে আজ প্রবাস জীবনেও মার্কেটিং এর সাথেই আছি।প্রবাস আমার স্বপ্ন নয়,স্বপ্ন আমার উদ্যেগতা।তাই অল্প সময়ের মধ্যে "নিজের বলার মত একটি গল্প" তৈরী করে আপনার "নিজের বলার মত একটি গল্পের মঞ্চে নিজেকে একজন সফল উদ্যোগতা হিসেবে প্রমান করতে চাই।আশা রাখি আপনি সকল প্রকার সহযোগিতা,অান্তরিকতা,প্রেষণা এবং আদেশ,উপদেশ দিয়ে একজন সফল উদ্যোগতা হতে সাহায্য করবেন। অবশেষে,বলতে চাই আপনার"বলার মত একটি গল্পের গ্রুপ থেকে শিখেছি অনেক কিছু।চিনতে পেরেছি কিছু নতুন মুখ,সঞ্চয় হয়েছে কিছু অভিজ্ঞতা।বলতে চাই অনেক কথা," বলবো একদিন সফলতার কথা,সফলতার মঞ্চে,সফল ব্যক্তিদের সামনে দাড়িয়ে, একজন সফল উদ্যোগতা হয়ে।ইনশাআল্লাহ। আপনার জন্য রইল সবসময় শুভ কামনা।

Ruhul Amin

পরিবারের বাবা এবং চাচারা সবাই ব্যবসায়ী যার কারনে বিজনেসের প্রতি প্রচণ্ড আগ্রহ ছোট বেলা থেকেই । আর সেই আগ্রহের কারণে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়ার চেষ্টা করেছি কিন্তু সুফল বয়ে আনতে পারিনি ভুল সিদ্ধান্তের কারনে তার পরেও চেষ্টা করেই যাচ্ছি এখনো। স্বপ্ন দেখুন, সাহস করুন, শুরু করুন, লেগে থাকুন; সাফল্য আসবেই" এই দর্শনটাও আমাকে প্রচন্ডভাবে অনুপ্রাণিত করেছে। যা আমার পূর্বের কষ্ট এবং ব্যর্থতাকে পিছনে ফেলে নতুন করে স্বপ্ন দেখার গল্প তৈরি করেছে। "নিজের বলার মতো একটা গল্প থাকা দরকার" > সফলতা হচ্ছে ৪ “স” – সুশিক্ষা, সুস্বাস্থ্য, সুখ ও সম্পদ। এই চারটি শব্দ আমার চোখ খুলে দিয়েছে। " কিভাবে ব্যবসায় শুরু করব? উত্তর, একটাই ফর্মুলা “প্রেম করা শুরু করেন”।"প্রতিযোগিতা হউক ভালমানুষ হবার"। সত্যিই আমাদের পছন্দের মানুষটিকে পাওয়া জন্য কি না করি! আর সেটা ব্যাবসায়িক ভাবে টার্গেট করা যায় আগে কখনোই ভাবিনি। ভালোমানুষ ছিলাম এবং থাকবো কখনোই অতি লোভে নিজের ব্যাক্তিত্বকে হারাতে দিবো না ইনশাআল্লাহ। এছাড়াও স্টার্ট আপ আইডিয়া মার্কেটিং নেট ওয়ার্কিং, মুলধন সংগ্রহ, ডকুমেন্টেশন, সহ অসংখ্য সু-স্পস্ট গাইডলাইন সত্যিই জীবনটাকে নতুন করে ভাবাতে শুরু করেছে শিখেছি- কমিন্টমেন্ট সম্পর্কে, সময় ও নিয়মানুবর্তিতা, একে অন্যকে শ্রদ্ধা-সম্মান এবং প্রীতি ও ভালোবাসার সাথে নিজেকে ও অন্যকে উৎসাহিত করা,নিজেকে ভালোবাসা ও নিজের মা-বাবার ও আশে-পাশের সবার জন্য কিছু করার মানসিকতা। শিখেছি এবং সর্বোচ্চ বিলিয়ে দিচ্ছি উদ্যোক্তা হওয়ার মেশিনে যা হয়তো এখটা সময় সফলতার গল্পের প্রডাকশন দিবে আমায়। বুক ফুলি বলবো নিজের বলার মতো গল্প আর সেই গল্পের প্রোডিউসার ইকবাল বাহার।

MD Kaium Khan

নিজের বলার মত একটা গল্প, শুধুই কি গল্প?? না শুধুই গল্প নয়, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটা স্বপ্ন, একটা ইতিহাস। আমরা এখানে ভালো কাজ করবো, একটা ভালো দেশ গড়ব। ভবিষ্যৎ প্রজন্ম জানবে নিজের বলার মত একটা গল্প থাকা দরকার। যার স্বপ্নে নিজের বলার মত গল্পের জন্ম সে তো আমাদের শ্রদ্ধেয় শিক্ষাগুরু ইকবাল বাহার স্যার। একজন ইকবাল বাহার বার বার জন্মায় না, একবারমাত্র জন্মায়। যার থেকে স্বপ্ন নিয়ে বাঁচে হাজার তরুন/তরুনী। আজ একটা কথা খুব জোড় দিয়ে বলতে পারি ভালোমানুষ ছিলাম না হয়তো কিন্তু ভালোমানুষ হওয়ার চেষ্টা অব্যাহত। জীবনে বড় একটা পাওয়া ভালো মানুষ হওয়ার ফর্মুলা শিখা। জীবনে অনেক কিছুই আসে যায় কিন্তু এরকম শিক্ষা বা কতজন পায়। আমরা এত এড় একটা পরিবারের সদস্য আর একজন অভিভাবক ভাবতে মনটা আনন্দে ভরে যায়। আজ এত এত ভালোমানুষ এর মাঝে আমিও ভালোমানুষ হয়ে বাঁচতে চাই।নিজের স্বপ্ন কে লালন করে বাঁচতে চাই। সংগ্রামী জীবনে একজন ভালোমানুষ হতে চাই। একজন ভালোমানুষ ও একজন সফল উদ্যোক্তা হওয়ার স্বপ্ন আমাকে তাড়া করে। জীবনে যেই মানুষটার কোন স্বপ্নই ছিলোনা সেই মানুষ টা আজ স্বপ্ন দেখে। পরিশেষে একজন ভালোমানুষ ও একজন সফল উদ্যোক্তা হবো, কিছু মানুষের কর্মসংস্থান করে তাদের মুখে হাসি ফুটাবো। একজন সৎ নির্ভেজাল ব্যবসায়ী হবো। এইচ্ছা ও স্বপ্ন নিয়ে আপনাদের সাথে আমারও পথ চলা। অসংখ্য দোয়া ও শুভকামনা স্যার আপনার জন্য। আল্লাহতালা আপনাকে ও আপনার পরিবারকে দীর্ঘায়ু দান করুক।

Ahm Mahedi Hasan Suvro

বিজনেসের প্রতি প্রচণ্ড আগ্রহ ছোট বেলা থেকেই । আর সেই আগ্রহের কারণে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়ার চেষ্টা করেছি এবং করেই যাচ্ছি এখনো । ঠিক যে সময় আমি আমার স্বপ্ন গুলো বাস্তবায়নের জন্য ছুটে চলছিলাম , একটা সেমিনারে গিয়ে ইকবাল বাহার স্যার এর কথা শোনার ভাগ্য হয় আমার । আমি তখন আমার পাশের সিটে বসা একটা ভাইকে জিজ্ঞেস করেছিলাম , কে এই ইকবাল বাহার??? সে আমাকে কিছুটা ব্যঙ্গ করে বলেছিল আপনি ইকবাল বাহারকে চিনেন না ?? সেদিন স্যার এর কথাগুলো শুনে অনেক বেশি অনুপ্রানিত হয়েছিলাম , এবং স্যার এর মুখে তার "নিজের বলার মত গল্পের" কথা শুনতে পাই , যখন শুনলাম যে সেই ট্রেনিং এর ৪৫ দিন পার হয়ে গেছে , খুব আফসোস লাগছিলো । কেন আগে জানতে পারলাম না , কেন ???? সেইদিন সেই ভাইয়ের কথা শোনার পর আমি মনে মনে ঠিক করে ফেলেছিলাম , ইকবাল বাহার স্যারকে আমি খুব ভালো ভাবে চিনে নিব । তার সব কিছুই ভালো ভাবে জানবো । বাসায় এসে ফেসবুকে স্যারকে খুঁজে বের করি , তারপর স্যারকে ফলো করা শুরু করলাম । প্রতিটা পোস্ট দেখতে লাগলাম তার । ইউটিউবে টেন মিনিট স্কুলে যে ভিডিও গুলো আপলোড দেয়া ছিল সব অভিভূত হয়ে দেখলাম । স্বপ্ন ভাবনা উদ্যোক্তা এর ভিডিও গুলো দেখে শেষ করলাম । আর সাথে সাথে নিজের বলার মত গল্পের গ্রুপে এড রিকোয়েস্ট পাঠিয়ে রেখে দিলাম । আমি অপেক্ষায় ছিলাম কবে সেকেন্ড ব্যাচ চালু হবে । কবে থেকে আমিও তার সরাসরি সান্যিধ্য পাবো । তার ছাত্র হতে পারবো ।

Sk Alamin

##ভাল মানুষ করার কারিগর। দোয়া করি বেঁচে থাকুক ভাল মানুষটি। সবাইকে অনেক অনেক ভালবাসা ও দোয়া রইল। আশা করি সবাই ভাল আছেন।আর দোয়া করি সবাই ভাল থাকেন এবং ভবিষ্যতে হয়ে ওঠেন এক একটা উজ্জল নক্ষত্র।তার সাথে বিশেষ ভাবে দোয়া রইল আমাদের সকলের প্রিয় ইকবাল বাহার ভাইয়ের জন্য এবং তাহার পরিবারের জন্য।আজ যখন সমাজে সবাই নিজের স্বার্থ নিয়ে ব্যস্ত তখন ভাই(ইকবাল বাহার) নিজের স্বার্থ বিলীন করে আমাদের মত অসহায়দের পথ দেখাচ্ছেন।যেখানে উনার কোন স্বার্থ না থাকলেও আছে মানসিক শান্তি।যেটা মানুষকে আলাদা করে দেয়।আজ উনি আমাদের নিয়ে এটা না করলেও কোন সমস্যা ছিল না উনার।তবু যে উনি করছেন।কারন এটা মানুষ আর ভাল মানুষের পার্থক্য। এই সমাজ যখন শুধু বেকার বেকার বলে পত্রিকা,টেলিভিশনে টকশো করে এবং বিভিন্ন সভা,সেমিনার করে কিন্তু বাস্তবে কাজ করে না।তখন ভাই(ইকবাল বাহার) ভাই বাস্তবে কাজ করিয়ে এই সমাজের চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছেন। তাই বলি আমরা যারা এখানে আছি আমরা আমাদের সবার প্রতি বিশ্বাস,আস্থা ও ভালবাসা দিয়ে এই গতানুগতিক চলন্ত সমাজটাকে দেখিয়ে দিতে চাই আমরা ও পারি। অনেক কিছু বলার ছিল কিন্তু থাক। পরিশেষে ভাই(ইকবাল বাহার)সহ এই গ্রুফের সবার জন্য অফুরন্ত ভালবাসা ও দোয়া। আমরাই পারব ইনশাল্লাহ।

Mohammad Ashraful Islam

“Entrepreneur - নিজের বলার মত একটা গল্প”-এই পরিবারের একজন সদস্য হতে পেরে আমি গর্বিত। আমি একজন খুবই সপ্নবাজ মানুষ।মাধ্যমিক লেভেল থেকেই ঘুমিয়ে নয় জেগে জেগে স্বপ্ন দেখতাম কিভাবে আমার ভবিষ্যতকে আমি ভাল কিছু দিয়ে সাজাব।কিন্তু বুজতে পারতাম না কিভাবে এই স্বপ্ন গুলোকে একত্রিত করে বাস্তবে রূপ দিবো। “Entrepreneur - নিজের বলার মত একটা গল্প”-এর ৬০ দিনের কর্মশালা আমার স্বপ্ন গুলোকে বাস্তবে রূপ দেয়ার জন্য একটি বিশাল বড় প্লাটফরম হিসেবে কাজ করছে।বুজতে পারছিলাম না কিভাবে শুরু করবো।সবাইকে নিয়ে এই সুন্দর একটা জার্নিতে শিখলাম কিভাবে সততাকে কাজে লাগিয়ে সাফল্য অর্জন করা যায়।এই জার্নিতে আমি শিখেছি কিভাবে সততা আর পজিটিভিটি দিয়ে কিভাবে মাঠ পর্যায়ে কাজ করতে হয়।এখন অনেক স্মার্ট এবং পজিটিভ আইডিয়া নিয়ে সহজেই প্লান করতে পারি, আগে এটা আমার দ্বারা হতনা।এই পরিবারের প্রতিটা সদস্যই খুব আন্তরিক।জনাব ইকবাল বাহার স্যার আপনার প্রতিটা উক্তিকে অনুসরণ করে নতুন কিছু সৃষ্টি করার লক্ষে নিজের বলার মত একটা গল্প তৈরি করবো ইনশাআল্লাহ।স্যার অবশ্যই আমি একজন ভাল মানুষ এইটা সামনে রেখেই আমি আমার জীবনে একটা গল্প তৈরি করার পথে চলেছি।মালিক শ্রমিক আমরা ভাই ভাই এটার একটা দৃষ্টান্তমূলক উধাহরন হয়ে বাংলাদেশের বুকে থাকতে চাই।"BE UR BOSS" আমার অনুপ্রেরণা।।

Md Rezaul Karim

প্রত্যেক মানুষেই স্বপ্ন দেখে কিন্তু সেই স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে সবাই পারে না বিভিন্ন কারণে যেমন পারিবারিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক, সঠিক উপদেশ ও দিক নির্দেশনা না পাওয়ার ফলে।মানুষ তার লক্ষ্য ও স্বপ্ন বাস্তবায়নে বাঁধা বা ক্ষতিগ্রস্ত হয় । আমার জীবনেও স্বপ্ন ছিল, অনেক বার হোঁচট খেয়েছি আবার উঠে দাঁড়িয়েছি এবং এগিয়ে যাচ্ছি স্বপ্ন দেখে । আমার মা হল আমার বড় শক্তি ও অনুপ্রেরণা যিনি আমাকে সব সময় সাহস দিয়ে যাচ্ছেন। এরই মধ্যে অলৌকিক ভাবে পরিচয় হল শ্রদ্ধেয় ইকবাল বাহার স্যারের সাথে, নিজের বলার মত একটা গল্প থাকার দরকার প্লাটফর্ম থেকে এটা ছিল স্যারের নব্বই দিনের কর্মশালার দ্বিতীয় ব্যাচ এখানে স্যারের দেওয়া উপদেশ ও নির্দেশনা আমাকে আর ও উজ্জেবিত করেছে আমার লক্ষ্য ও স্বপ্ন বাস্তবায়নে এবং নিজের বলার মত একটা গল্প তৈরী করার । আমি বিশ্বাস করি জীবনে সফল হতে হলে ভাল মানুষ হওয়া ছাড়া কোন বিকল্প নেই । নিজের প্রতি বিশ্বাস ও ভালবাসা আর বাবা মায়ের দোয়া নিয়ে এগিয়ে গেলে জীবনে চলার পথে কোন বাধা দমিয়ে রাখতে পারে না। পরিশেষে বলতে চাই ইকবাল বাহার স্যারের বানী থেকে "স্বপ্ন দেখুন, সাহস করুন, শুরু করুন, লেগে থাকুন সাফল্য আসবেই"। আমি ও নিজের বলার মত একটা গল্প তৈরী করতে চাই।ইনশাআল্লাহ।

মো: মুভেজুল হক মুভেজ

আলহামদুলিল্লাহ্‌ ৬০দিনের সফল সমাপ্তি শেষে শ্রদ্ধেয় স্যার ইকবাল বাহার আরও ৩০দিন আমাদেরকে ক্লাস করাবেন, দিকনির্দেশনা দিবেন, গাইডলাইন দিবেন। যাতে আমরা আমাদের আইডিয়া গুলো নিয়ে সঠিকভাবে কাজ করতে পারি, সফলতার পথে এগিয়ে যেতে পারি। একজন মানুষ অন্য মানুষের জন্য নিঃস্বার্থভাবে নিজেকে এতটা নিবেদিত করতে পারে তা শ্রদ্ধেয় স্যার ইকবাল বাহারকে না দেখলে হয়ত আমি বিশ্বাস করতে পারতাম না। অনেকেই হয়ত মানুষের জন্য বিভিন্ন ভাবে কাজ করে থাকেন, কিন্তু দিনের পর দিন নিজের ব্যবসা, সংসার থেকে আলাদা করে প্রতিদিন আমাদেরকে সময় দিচ্ছেন। আমরা যাতে সফল হই, ভালো মানুষ হই। আসলে স্যারের কথা লিখে কোনদিন শেষ করতে পারব না। স্যার আমাদের জন্য যে কত বড় রহমত তা একমাত্র মহান আল্লাহ ই ভালো জানেন। তাই আসুন আমরা সকলেই স্যারের প্রত্যেকটি গাইডলাইন গুরুত্তের সাথে পালন করি। নিজে সফল হই এবং অন্যকে সফল হতে সাহায্য করি। সর্বোপরি আমরা সকলেই যেন একেকজন ভালো মানুষ হতে পারি এই আশা, এই কামনা নিয়ে এবং স্যারের প্রতি গভীর ভালবাসা ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করে শেষ করছি। সবাই ভাল থাকবেন, ভাল রাখবেন।

GM Abdulla Almamun

আমার বর্তমানে বয়স ২৫ বছর। ছোট এই সময়ে ব্যর্থতার চাকাটা হয়তো একটু বড়ই হবে। আমি যখন অগোছালো হয়ে গিয়ে ছিলাম ঠিক তখনি আমার প্রিয় ইকবাল বাহার স্যারের নিজের বলার মত একটা গল্প গুপে যুক্ত হতে পেরেছি। সত্যি আজ নিজেকে ভাগ্যবান মনে হচ্ছে যে এমন একটা প্লাটফরমে আমি আছি। আমি নিজের মধ্যে আবার অনুপ্রেরণা খুজে পেয়েছি। শিক্ষলাম কিভাবে ব্যর্থতার খুব কাছাকাছি গিয়েও সফলতাকে ছিনিয়ে নেয়া যায়। কিভাবে একজন ভালো মানুষ হয়া যায়। শুধু আমি সফল না আমার সফলতার পাশাপাশি আরোও দশ বিশ পরিবারের দায়িত্ব নেয়া যায়। আরো জানতে পারলাম সফলতার ৪টি 'স' সুশিক্ষা, সুস্বাস্থ্য, সুখ এবং সম্পদ। জানতে পারলাম ১০ জনের কাছে গিয়ে ব্যর্থ হলেও প্রয়োজনে আরো ২০ জনের কাছে গিয়ে সফলতা ছিনিয়ে আনা যায়। সর্বোপরি কিভাবে একটা কোম্পানি গঠন করা যায়। আর গঠন করতে কি ফর্মূলা লাগে তা জানলাম। নিজেকে ভালোবাসা নিজের পরিচয় বুক পুলিয়ে দেয়া। দেশকে ভালোবাসা দেশের মানুষকে ভালোবাসা। মানুষকে সম্মান করা। সত্যি আমি পারি আমি পারবো সেই ভাবনাটাই লালন করা।

Shangkar Das

আপনার কারণে হাজার হাজার মানুষ স্বপ্ন দেখার সাহস পাচ্ছে।আপনি আমাদের প্রত্যেককে স্বপ্নবাজ উদোক্তা +ভাল মানুষ হতে কি পরিমাণ যে নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তা লেখায় প্রকাশ করা অসম্ভব। আমি একসময় প্রচন্ড হতাশাগ্রস্ত +নেগেটিভ মাইন্ডের মানুষ ছিলাম বিভিন্ন কারণে।আপনাকে ফলো করার পর থেকে আমি সত্যিকারার্থে এখন অভার পজেটিভ পার্সনে পরিণত হয়েছি।এখন আমি প্রচন্ড স্বপ্নবাজ,সেই লক্ষ্যে অবিরাম কাজও করে যাচ্ছি।আগে খুব বেশি পড়াশোনা করতাম না।আপনাকে ফলো করার পর থেকে অনেক স্টাডিও করি। নিজেকে এখন খুব সুখি মানুষ মনে হয় নিজের পজেটিভ দৃষ্টিভঙ্গির কারণে।ভাইয়ার সঙ্গ লাভে দিন দিন সবকিছুতে পরিবর্তন আসছে। আপনার সংগ্রামী জীবন আমাকে সত্যিকারর্থে অনুপ্রাণিত করেছে। আমার এলাকার কিছু মানুষের দুঃখ-কষ্ট রিয়েলি আমাকে টাচ করে,কষ্ট দেয়।আমি তাদের কষ্ট কিছুটা লাঘব করতে চাই বলে আমি উদোক্তা হতে চাই।

Mehedi Hasan Sohel

প্রিয় ইকবাল বাহার স্যারের প্রতিটা পোষ্ট বা পরামর্শ আমাকে নতুন করে শক্তি, সাহস আর আত্মবিশ্বাস যোগান দিয়েছে। স্যারের কথা গুলি যখন আমি শুনি আমার ভাবনার উদয় হয়, এবং আমাকে নতুন করে কিছু শেখায়। উদ্যোক্তা হওয়ার অদম্য বাসনা মনকে বার বার শিহরিত করেছে। পরিবার, সমাজ, শিক্ষা জীবন থেকে হয়তো অনেক কিছু শিখেছি কিন্তু চ্যালেঞ্জ নেওয়ার সাহসটা কিন্তু এখান থেকেই শিখেছি। শিখেছি জিবনের সফলতার ৪"স"-, সুশিক্ষা, সুস্বাস্থ্য, সুখ ও সম্পদ, সর্বোপরি একজন ভালোমানুষ হওয়া। এটা আমার জীবন নতুনভাবে ভাবার জন্য অসাধারন জার্নি ছিলো। আমার নিজের মধ্যে যে পরিবর্তন হয়েছে সেটা অকল্পনীয়। এবং আমি নিশ্চিত যে আমার এই মানসিকতা ভবিষ্যতে অনেক বড় প্রাপ্তি হবে আমার নিজের জন্য এবং আমার জিবনে “নিজের বলার মত একটা গল্প” তৈরি করার জন্য।

Farzana Tuz Zohra

আমি ফারজানা তুজ জোহরা। ইংরেজি সাহিত্য থেকে মাস্টার্স করেছি তিতুমীর কলেজ থেকে।আমি একজন অনলাইন পেজ ওনার।আমি খুব শখে শখে নিজের মতো করে অনলাইন এ পন্য বেচাকেনা করা শুরু করি,নিজে নিজে ঠেকে ঠেকে শিখেছি কিভাবে কি করতে হয়,অনেক সময় অনেক জায়গায় আটকে গিয়েছি।একদিন হঠাত করে ইকবাল স্যার এর লাইভ দেখলাম নিইজ ফিড এ,জয়েন হলাম স্যার এর গ্রুপে।কিছু না ভেবে মন দিয়ে স্যার এর ওয়ার্কশপ করলাম টানা ৯০ দিন। আমার আমিকে আবিস্কার করলাম একজন উদ্যোগক্তা হিসেবে,আমি বিজনেস টা করছিলাম অগোছালোভাবে,স্যার এর কোর্স আমাকে একটা সুন্দর কাঠামো তে কাজ করার জন্য ব্যাপক ভূমিকা রেখেছে। আমি সন্চয়, মূলধন,আইডিয়া প্রজেক্ট,কমিটমেন্ট,কাস্টমার কেয়ার,মার্কেটিং, কনফিডেন্ট,ভালো ব্যবহার,মা বাবাকে সম্মান করা, সব গুলো বিষয় সম্পর্কে আমি স্যার এর কাছ থেকে ধারনা পেয়েছি,হোম ওয়ার্ক গুলো আমাদের কে অনেক সুন্দর করে কিভাবে বিজনেস করতে হয় সব ধারনা গুলো দিয়েছে। এখন বলতে পারি স্যার এর প্রশিক্ষণ আমাকে ভালো মানুষ হতে শিখিয়েছে।সময়ের মূল্যবোধ শিখিয়েছে।আমি আমার কাজে কনফিডেন্ট পাচ্ছি,আগে ভয় লাগতো,ভাবতাম পারবো তো কিছু করতে,কিন্তু স্যার আমাদের যে শিক্ষা দিয়েছে,আমি এখন মাথা উঁচু করে বলতে পারি, "আমিও রচনা করে যাবো আমার নিজের একটা ছোট গল্প।"

Muntasir Ahmed

নিম্ন মদ্ধ বিত্ত পরিবারে মা বাবার ছোট ছেলে। ১ মাস হলো অনার্স ফাইনাল পরীক্ষা শেষ হলো।২০১৭ নিজেকে নিয়ে ভেবেছি কি করবো ভবিষ্যতে। ঠিক করে ফেললাম উদ্যোক্তা হবো পরিকল্পনা করলাম ২০১৭-২০২১। ২০১৭ গেলো পরিকল্পনা করতে করতে এর পর ঠিক করলাম ২০১৮ এর জুন মাসে আমার প্রজেক্ট বাস্তবায়ন করার লক্ষে কাজ করবো |জানি এখন থেকে আমাকে অনেক কষ্ট করতে হবে।কিন্তু মাঝে আমাকে অনেক পীড়া দিতো আমার নিজের বন্ধুদের কথা। আমি তুলনামূলক ভাবে ছাত্র হিসেবে এভারেজ। ততটা ভালো না। আমি জীবনে কিছু করতে পারি এটা যেন তারা নিতে পারেনা এমন ভাব দেখায়। তারা বলে তুইত অনেক বড় লোক হইয়া যাবি আমরাই জীবনে কিছু করতে পারবোনা। ..মন যায় খারাপ হয়ে।অনেকটা খোঁচা মেরে কথা বলার মতো। এমন সময় ইকবাল বাহার ভাই আমার মত মানুষের জন্য নিয়ে আসলেন সাহস। যেটা আমার খুব দরকার ছিল। অনেক কিছু শিখলাম তার কাছ থেকে কিভাবে চুপ থেকে কাজের মাধ্যমে আশেপাশের মুখোশধারী মানুষদের কটু কথা জবাব দিতে হয়।

মানিক রাজ

আমি প্রথমে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাতে চাই Iqbal Bahar স্যার কে. যিনি হাজারো ব্যাস্ততা এর মাঝে আমাদের মত উদ্দেশহীন,স্বপ্নহীন তরুণ তরুণী কে নুতুন করে স্বপ্ন দেখতে শক্তি জুগিয়েছেন এবং সেই স্বপনকে বাস্তবে রুপ দেয়ার জন্য প্রতিটা দিন নিজের মূল্যবান সময় গুলো পরিবারকে না দিয়ে আমাদেরকে দিচ্ছেন। যদি বলি এই পাঁচ মাসে কি শিখেছি কি করেছি বলে বা লিখে শেষ করা যাবেনা ,শুধু একটা কথাই বলবো একটা ভাল মানুষ হতে যে গুন্ গুলো প্রয়োজন,সেই গুণ গুলো নিজের আয়ত্তে নিয়ে এসেছি। ৯ টা ৫ টা ভুলে গেছি, রাগ ছিল রাগ টা কমিয়েছি, মানুষকে মন থেকে সন্মান এবং ভালোবাসতে শিখেছি। কথা দিয়েছিলাম সে দিন প্রোগ্রাম এ একজন ভাল মানুষ হয়ে নিজের জন্য নিজের পরিবার এর জন্য এবং দেশের জন্য ভাল কিছু করবো সেই স্বপ্ন নিয়ে সামনের দিকে এগোচ্ছি। জীবনে এত কিছু শিখার বাকি ছিল এই প্রোগ্রাম এ যুক্ত না হলে জানতাম না। শেষে একটা কথাই বলতে চাই, সকল শিক্ষকের উপর সন্মান রেখে বলতে চাই এখন পর্যন্ত আপনি আপনি আমার প্রিয় শিক্ষক ।